এইচ এম সাইফুল্লাহ্, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলায় মঙ্গলবার (২২ আগস্ট) সকালে ইজিবাইকের চাকার সাথে ওড়না পেচিয়ে নিহত অজ্ঞাত যুবতী ও শিশুর পরিচয়ের সন্ধান পাওয়া যায়। নান্দাইল মডেল থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, অজ্ঞাত যুবতী কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব সদর উপজেলার পঞ্চবতী গ্রামের শফিক মিয়া ও শাহানা খাতুনের একমাত্র মেয়ে সোহাগী আক্তার (১৬) এবং তাঁরই ভাই সোহাগ (৪)।

উক্ত যুবতী ও শিশু ঢাকা থেকে বাড়ি ফেরার উদ্দ্যেশ্যে সোমবার (২১ আগস্ট) ভূলক্রমে ঢাকা-তাড়াইল যাত্রাগামী বাসে উঠে পড়লে নান্দাইল উপজেলা সদরে নেমে পড়ে এবং রাত্রী গভীর হওয়ায় উপজেলার ধুরুয়া গ্রামের রেণুয়ারা বেগমের বাড়িতে রাতে আশ্রয়স্থল গ্রহন করে। পরদিন মঙ্গলবার (২২ আগস্ট) সকালে নাস্তাপানি শেষ করে সোহাগী আক্তার ও তার ভাই সোহাগ ফের বাড়ির উদ্দ্যেশ্যে একটি অটো ইজিবাইকে উঠলে চলন্ত অটো বাইকের চাকায় যুবতীর ওড়না পেচিয়ে গেলে সে মারা যায়। ড্রাইভার ইজিবাইকটিকে নান্দাইল উপজেলা সদর হাসপাতাল গেইটে রেখে দ্রুত পালিয়ে যায় স্থানীয় লোকজনের সহযোগীতায় জরুরী বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার যুবতীকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। নান্দাইল মডেল থানা পুলিশ ইজি বাইকটি আটক করে থানায় নিয়ে যায়। উক্ত যুবতী ও শিশুর পরিচয় সন্ধানের জন্য নান্দাইল মডেল থানা পুলিশ এবং কর্মরত মিডিয়াকর্মীরা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও অনলাইন ফেইসবুক মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার করে। অপর দিকে একটি সূত্র থেকে নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সরদার মোঃ ইউনুস আলীর পরামর্শক্রমে নান্দাইল মডেল থানার এসআই সাফায়েত হোসেন কিশোরগঞ্জ জেলায় অনুসন্ধান চালিয়ে বুধবার (২৩ আগস্ট) ১১.৩০ ঘটিকায় উক্ত যুবতী ও শিশুর সঠিক পরিচয়ের সন্ধান পান ও নিহত সোহাগীর ভাই সোহাগকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেন এবং যুবতী সোহাগীর লাশ ময়না তদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেলা সদর হাসাপাতাল মর্গে প্রেরন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here