আসামি ছেড়ে ইয়াবা ভাগবাটোয়ারা, ৫ পুলিশ গ্রেফতার

(রাজধানী উত্তরা পূর্ব-পশ্চিম, উত্তর-দক্ষিণ ও তুরাগ থানা সহ বেশ কিছু থানারপুলিশ শুধু মাত্র ইয়াবা আসামীদেরকে গ্রেফতারের জন্য কাজ করে। আবার অনেকে নিজেরাই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। উত্তরা পূর্ব থানার ওসি তদন্তকে তথ্যের জন্য ফোন দিলে তিনি জানান, তথ্য জানতে হলে ডিসি মিডিয়াকে ফোন করেন। পরবর্তীতে ডিসি- মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন ডিএমপিকে ফোন করলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি এখনো অবগত নই, জেনে আমি আপনাকে তথ্য দিব। প্রশাসনের কাছে সবাই জিম্মি। ইয়াবা-কিশোর গ্যাং গ্রেফতারে অনেক পর্যায়ে পুলিশের নাটক আর পকেট ভারি অনেকটাই খোলাশা। তবুও থেমে নেই সৎ পুলিশদের কর্মযজ্ঞ। পরিবর্তনের নির্দেশে প্রধানমন্ত্রী অনড়, চলছে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অসৎ পুলিশের প্রতি আল্টিমেটাম)

 

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

আসামীদের নিকট থেকে  ইয়াবা জব্দ করে তাদের ছেড়ে দেন পুলিশের সদস্যরা। এরপর চলে ওই ইয়াবার ভাগবাটোয়ারা ও বিক্রির প্রস্তুতি। অবশেষে পুলিশের কাছেই গ্রেফতার হন তারা। রোববার রাতে এই অভিযোগে এপিবিএনের চার পুলিশ কর্মকর্তা এবং গুলশান থানার এক এএসআইকে গ্রেফতার করা হয়।

রোববার দিনভর তাদের দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। অবশেষে রাতে তাদের বিরুদ্ধে করা হয় মামলা।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- এপিবিএনের কনস্টেবল প্রশান্ত মণ্ডল (২৩), নায়েক মো. জাহাঙ্গীর আলম (২৭), কনস্টেবল মো. রনি মোল্ল্যা (২১), কনস্টেবল মো. শরিফুল ইসলাম (২৩) ও গুলশান থানার এএসআই মাসুদ আহমেদ মিয়াজী (৪৪)। পৃথক অভিযানে তাদের গ্রেফতার করে উত্তরা পূর্ব থানা ও এপিবিএন।

অভিযানে অংশ নেয়া অফিসার ও মামলার বাদী আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন-১ এর এসআই মো. জাফর  দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মামলার এজাহারে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে উত্তরার এপিবিএন-১ সদর দফতরের ব্যারাক ভবনের চতুর্থ তলার বাথরুমের সামনে কয়েকজন পুলিশ সদস্য ইয়াবার ভাগবাটোয়ারা করছেন। তখনই তাদের বিরুদ্ধে অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয় এপিবিএন। ঊর্ধ্বতনদের অনুমতি নিয়ে একটি ফোর্স যায় সেই বাথরুমে। অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন এপিবিএন-১ এর উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আবু জাফর।

অভিযানে বাথরুমের সামনে গিয়ে কনস্টেবল প্রশান্ত মণ্ডল, কনস্টেবল রনি মোল্ল্যা ও কনস্টেবল শরিফুল ইসলামকে দেখতে পায় তারা। এরপর তাদের নাম-পরিচয় জিজ্ঞাসা করা হয়। বিস্তারিত পরিচয় নেয়ার পর তল্লাশি চালানো হয় কনস্টেবল প্রশান্ত মণ্ডলকে। তার পরিহিত ফুল প্যান্টের ডান পকেট থেকে ১৫৮ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। অভিযান চালানো হয় মণ্ডলের ব্যারাকের রুমে। সেখানে তার কাপড়ের ট্রাঙ্ক থেকে আরও ৩৯৪ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের পর শরিফুলের কাছ থেকে ইয়াবা বিক্রির নগদ ১৫ হাজার টাকাসহ গ্রেফতার করা হয়।

এবার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় শরীফুলকে। জিজ্ঞাসাবাদে সে পুলিশকে জানায়, সে রনি মোল্ল্যার কাছ থেকে ১৮৫০০ টাকায় ১৫০ পিস ইয়াবা কিনেছে। এরপর গ্রেফতার করা হয় রনিকে।

সর্বশেষ প্রশান্তকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, ১১ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৬টায় গুলশানের গুদারাঘাট চেকপোস্টে একটি মোটরসাইকেল তল্লাশি করে আরোহীর কাছ থেকে ইয়াবাগুলো উদ্ধার করা হয়। তবে মোটরসাইকেল আরোহীর সঙ্গে যোগসাজশ করে তাকে ছেড়ে দিয়ে তার কাছে থাকা ২০০ পিস ইয়াবা গুলশানের এএসআই মাসুদ মিয়াজী তার হেফাজতে রাখে। বাকি ১৫০ পিস নেয় জাহাঙ্গীর আলম।

তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ এর ৩৬ (১) ও ৪১ ধারায় মামলা করা হয়েছে।