গৌরনদী(বরিশাল) উপজেলা সংবাদদাতাঃ বরিশালের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৮ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষার প্রবেশপত্র প্রদানের নামে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার ২৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৩শ থেকে ৪শ টাকা করে আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষায় গৌরনদী উপজেলার ২৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রায় চার হাজার নিয়মিত ও চার শত অনিয়মিত পরীক্ষার্থী রয়েছে। বরিশাল শিক্ষা বোর্ডে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে।
উপজেলার খাঞ্জাপুর পাঙ্গাশিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর অভিভাবক মো. কামাল হোসেন জানান, তার ভাতিজার প্রবেশপত্র আনতে গিয়ে তিনশত পঞ্চাস টাকা দিতে হয়েছে। অভিভাবক মিজান মুন্সী জানান, তার কন্যার ফরম পুরনে ৪ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছিল, এখন আবার প্রবেশপত্র আনতে সাড়ে তিন শত টাকা দিতে হয়েছে। গৌরনদী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবক মো. জামাল হাওলাদার জানান, তার পুত্রের প্রবেশ পত্র আনতে গেল স্যারেরা ৪শত টাকা দাবি করেন। একই অভিযোগ করেন কমপক্ষে আরো চার অভিভাবক। পরীক্ষার প্রবেশপত্র প্রদানের নামে বিভিন্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধিকাংশ পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করেন।
গৌরনদী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. অলিউল্লাহ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, প্রবেশ পত্রের জন্য টাকা রাখা হচ্ছে না। যে পরীক্ষার্থী কেন্দ্র ফি বকেয়া (বাকি) রেখে ফরম পূরণ করেছিলো তাদের কাছ থেকে কেন্দ্র ফি বাবদ টাকা রাখা হচ্ছে। বাউরগাতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবক রুবেল ঘরামী অভিযোগ করেন, তার কন্যার প্রবেশপত্র আনতে সাড়ে তিনশত টাকা পরিশোধ করতে হয়েছে। উপজেলার প্রায় সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছ থেকে অনুরূপ অভিযোগ পাওয়া গেছে।
গৌরনদী উপজেলা বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক মো. মজিবুর রহমান বলেন, এবারে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পুরনের সময় অধিকাংশ পরীক্ষার্থীই কেন্দ্র ফির টাকা বাকি রেখে ফরম পুরন করেছে। তাদের কাছ থেকে কেন্দ্র ফি বাবদ টাকা রাখা হচ্ছে। কিন্তু প্রবেশপত্রের জন্য কোন টাকা রাখা হচ্ছে না। গৌরনদী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. সেলিম মিয়া বলেন, প্রবেশপত্র প্রদানের নামে টাকা নেয়ার কোন বিধান নেই। পরীক্ষার্থীর অভিভাবকগণ লিখিত অভিযোগ দিলে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here