জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল আর নেই

অনলাইন ডেস্ক:

 

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল আর নেই। গতকাল সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে মুম্বাইয়ের বেসরকারি হাসপাতালে তিনি শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৬১ বছর।

জানা যায়, অনেক দিন ধরেই স্নায়ুজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। গত ২৮ জানুয়ারি মেয়ে সোহিনী পালের কাছে মুম্বাইয়ে গিয়েছিলেন তাপস পাল। কিডনির চিকিৎসার জন্য ১ ফেব্রুয়ারি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু বিমান ধরার আগে অসুস্থ হয়ে পড়লে মুম্বাইয়ের বান্দ্রার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে।অবস্থার অবনতি ঘটলে তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। কিন্তু শেখানেই মারা যান তিনি।

কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা, এবিপি নিউজসহ অন্যান্য গণমাধ্যম এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছে।খবরে বলা হয়, দীর্ঘদিন ধরে স্নায়ুরোগে ভুগছিলেন তাপস পাল। ১ ফেব্রুয়ারি বান্দ্রার হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। ৬ ফেব্রুয়ারি তাঁর ভেন্টিলেশন খুলে নেওয়া হয়। গতকাল রাতে তিনি আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। পরে দিবাগত রাত তিনটা ৩৫ মিনিটে তাঁর মৃত্যু হয়

১৯৫৮ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর হুগলির চন্দননগরে জন্মেছিলেন তাপস পাল। ছোটবেলা থেকেই অভিনয়ের প্রতি প্রবল আগ্রহ ছিল। পরিচালক তরুণ মজুমদারের হাত ধরে মাত্র ২২ বছর বয়সে বাংলা ছবির দুনিয়ায় পা রাখেন তাপস পাল।

তপন সিংহ থেকে অঞ্জন চৌধুরি, অরবিন্দ মুখোপাধ্যায় থেকে তরুণ মজুমদার, এমন বহু খ্যাতনামা পরিচালকের চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। আশি থেকে নব্বই দশকের বাংলা চলচ্চিত্রের প্রেম, অভিমান, অনুরাগ এবং লড়াইয়ের সঙ্গে সমার্থক হয়ে উঠেছিলেন তাপস।‘দাদার কীর্তি’ দিয়ে অভিনয়ের সূচনা হয়েছিল তাপস পালের। এরপর ‘অনুরাগের ছোয়া’, ‘সুরের আকাশ’,‘সাহেব’, ‘চোখের আলো’-সহ একাধিক জনপ্রিয় চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। দেবশ্রী রায়, শতাব্দী রায়, রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো অভিনেত্রীদের সঙ্গে জুটি তৈরি করে একাধিক সফল চলচ্চিত্র উপহার দিয়েছেন।

বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের ‘উত্তরা’ বা ‘মন্দ মেয়ের উপাখ্যান’ ছবিতে তাপস অসামান্য অভিনয় করেছিলেন

প্রথম ছবি ‘দাদার কীর্তির’ সঙ্গেই দর্শক-সমালোচকদের মন জিতে নেন তিনি। এর পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাপস পালকে। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলোর মধ্যে অন্যতম ‘সাহেব’, ‘অনুরাগের ছোঁয়া’, ‘পারাবত প্রিয়া’, ‘উত্তরা’, ‘ভালোবাসা ভালোবসা’। ১৯৮১ সালে ‘সাহেব’ ছবিতে দুর্দান্ত অভিনয়ের জন্য ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পান তাপস পাল।বাংলার পাশাপাশি বেশ কিছু হিন্দি ছবিতেও তিনি অভিনয় করেছেন।

২০০৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে কৃষ্ণনগর থেকে তৃণমূলের টিকিটে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন তাপস পাল।

২০১৯ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের সাংসদ ছিলেন তিনি। ২০১৬ সালে রোজভ্যালি চিটফাণ্ড যুক্ত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হন তিনি। ১৩ মাস সিবিআই হেফাজতে থাকার পর ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে জামিনে মুক্তি পান তিনি।

পরিবার সূত্রের খবর, মঙ্গলবার বিকালে তাপস পালের দেহ কলকাতায় নিয়ে আসা হবে। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে টালিউডে।