জামালপুরের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তরা চরম বিপাকে

রোকনুজ্জামান সবুজ জামালপুর :

 

জামালপুর জেলার মেলান্দহ উপজেলার মাহমুদপুর এবং ইসলামপুর উপজেলার নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের অন্ততঃ ৩০টি গ্রাম এবছর ভয়াবহ বন্যা কবলিত হয়েছে। ওই দ্ইুটি ইউনিয়নের অভ্যন্তরীণ বহু সড়ক যোগাযোগ আজও বিচ্ছিন্ন রয়েছে এবং অসংখ্য সবজি ও পাটক্ষেতসহ বিভিন্ন ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, যমুনার তীরবর্তী হওয়ায় বন্যার সময় যমুনার তীব্র ¯্রােতে মাহমুদপুর এবং নোয়ারপাড়া ইউনিয়ন দু’টির অভ্যন্তরীন অধিকাংশ সড়কের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। মেলান্দহ উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের আজিতপুর গ্রামের অন্তত: ২০০ হেক্টর জমির সবজি ও পাাটক্ষেত বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এবছর ভয়াবহ বন্যা চলাকালে মাহমুদপুর এবং নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের অসংখ্য ফসলি জমি টানা দুই সপ্তাহ পানির নিচে তলিয়ে ছিল। এতে ওই ইউনিয়ন দুটির অন্তত: ৫০০ হেক্টর জমির সবজি ও পাাটক্ষেত ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেছে। মেলান্দহ উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের যমুনা তীরবর্তী এলাকা সমূহের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। মাহমুদপুর-গোপিন্দি সড়কে নিয়মিত যাতায়াতকারী অন্তত: ২০ হাজার মানুষ একটি ব্রীজের অভাবে দীর্ঘদিন যাবত দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

ইসলামপুুরের নোয়ারপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি লুৎফর রহমান জানান, নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের তারতাপাড়া, মাইজবাড়ী, কাজলা, কাঠমা গ্রাম সমুহের ৩ শতাধিক পরিবারের বসতভিটা এবছরের ভয়াবহ বন্যায় যমুনা নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। যমুনা নদীভাঙ্গা ওইসব পরিরবারের মানুষগুলো এখনো বিভিন্ন রাস্তার ধারে ঝুুপড়ি বেঁধে অথবা অন্যের জমিতে আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এছাড়াও এবছরের ভয়াবহ বন্যার পানির তীব্র¯্রােতে নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের তাড়তাপাড়া ও সোনামুখী গ্রামের আরো অন্তত: দুইশ পরিবারের বসতভিটা ভেঙ্গে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে।