রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন
Title :
বমনা থানায় মাদক-সন্ত্রাস নির্মূলে কঠোর ভূমিকায় ওসি বশির আলম কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক হলেন নীলফামারীর মোঃ রতন সরকার রূপসায় আওয়ামীলীগ নেতা ও সাংবাদিক বাবুর চাচার মৃত‍্যু, জানাজা সম্পন্ন শেরপুরে ৬ বছরের শিশু ধর্ষণ, প্রধান আসামি গ্রেপ্তার টাঙ্গাইলে ইট পোড়ানোয় ব্যবহৃত হচ্ছে বনের কাঠ : অবৈধ ১৪৮ ইটভাটার কার্যক্রম বন্ধ হয়নি মিরপুর ১ নাম্বারে প্রকাশ্যেই আবাসিক হোটেল আল মামুনের রমরমা মাদক ও নারী বাণিজ্য নরসিংদীতে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা স্কুল ছাত্রী মিমকে হত্যার অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে বিচারের দাবিতে শিববাড়ী মোড়ে মানববন্ধন বন্দরের ৭২তম প্রতিষ্ঠা বাষির্কীতে ইয়ামিন আলীকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান কুষ্টিয়ার থানাপাড়ায় বসতবাড়িতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড

ধর্মপাশায় ১৪৪ ধারা জারী

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৬ Time View

সেলিম আহম্মেদ, হাওরাঞ্চল প্রতিনিধি:
সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় একই দিনে বিএনপি ও ছাত্রদলের সমাবেশকে ঘিরে এলাকায় দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে সংঘাত এড়াতে সভাস্থল এলাকায় ১৪৪ ধারা জারী করেছেন উপজেলা প্রশাসন।
গতকাল সোমবার ভোর ৬টা থেকে শুরু করে রাত ১২টা পর্যন্ত সভাস্থল উপজেলার গোলকপুর বাজার ও আশ-পাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে মর্মে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে জানানো হয়েছে।
জানা গেছে, সোমবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলার গোলকপুর বাজারে এক ছাত্র গন-সমাবেশের আয়োজন করে উপজেলা ছাত্র দলের নেতা-কর্মীরা। ওই ছাত্র গণ সমাবেশে বাধা দেয়ার লক্ষে একই দিনে একই স্থানে বিএনপির সংস্কারপন্থী নেতা হিসেবে পরিচিত নজীর হোসেনের সমর্থিত কিছু নেতা-কর্মীরাও সদস্য সংগ্রহের নাম করে পাল্টা সমাবেশের আয়োজন করে। পরে এ নিয়ে দুই গ্রুপের নেতা-কর্মীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই সভাস্থলসহ গোলকপুর বাজারের আশপাশ এলাকায় ১৪৪ ধারা জারী করা হয়।
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুন খন্দকার বলেন, বিএনপির দুই গ্রুপে নেতা-কর্মীদের মধ্যে চলা সংঘাত এড়াতেই গোলকপুর বাজারসহ সভাস্থলে ১৪৪ ধারা জারী করা হয়েছে।
এদিকে সোমবার দুপুরে উপজেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে এ উপলক্ষে অনুষ্টিত এক সংবাদ সম্মেলণে
১/১১ সংস্কারপন্থী নেতা নজীর হোসেনকে দোষারোপ করে বলেন, দলের সাথে যে বেঈমানী করে সে কোনো দিন ভাল হতে পারেনা। নেতারা বলেন, ১/১১ পর থেকেই বিএনপির সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ডাক্তার রফিকুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে সুনামগঞ্জ-১ আসনে আমরা বিএনপিকে তৃণমূল পর্যায়ে শক্তিশালী করে গড়ে তোলেছি।  এতে করে আমরা তার নেতৃত্বে রাজনীতী করতে গিয়ে এই আওয়ামীলীগ সরকারের নেতা-কর্মীদে দায়েরকৃত একাধিক মিথ্যা মামলায় আসামী হয়ে আমাদেরকে কারাবরণ করতে হয়েছে। কিন্তু যে বিএনপি নেতা ১/১১ সময়ে দলের সাথে বেঈমানী করে সংস্কারপন্থী হিসেবে দেশব্যাপী পরিচিতি পেয়েছে আজ তাকে দলের চেয়ারপার্সন ক্ষমা করে দিলেও তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা তাকে মেনে নিতে পারছেননা। নেতা নজীর হোসেনের নাম উল্লেখ করে আরো বলেন, কয়লা ধূইলে যেমন ময়লা যায না ঠিক তেমনি নজীর হোসেনেরও চরীত্র বদলায়নি। তিনি দলীয় প্রধানের ক্ষমা পাওয়ার পর কোনো দিন এলাকায় আসেননি বা উপজেলা থেকে শুরু করে দলের তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের সাথে কোনো  যোগ না রেখে তিনি এক-এগারোর পর থেকে যাদের সাথে যোগাযোগ করে আসছিলেন এখনো তিনি তাদের সাথেই যোগাযোগ রক্ষা করে যাচ্ছেন। তিনি এখনো বিএনপিকে ধ্বংসের কাজে লিপ্ত রয়েছেন। আর না হয় আমাদের উপজেলা ছাত্রদলের পূর্ব ঘোষিত ছাত্র গণ সমাবেশের স্থলে উপজেলা বিএনপির কোনো নেতার সাথে যোগাযোগ না করেই তিনি তার এক-এগারোর সাথীদের নিয়ে ছাত্রদলের এ কর্মসূচীকে বানচাল করার জন্য একই স্থানে আরেকটি সমাবেশের আহবান করেন।
সংবাদ সম্মেলণে  উপজেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি আফসার আলম চন্দন পীর, সাধারণ সম্পাদক ইসতিয়াক হোসেন চৌধুরী স্বপন,উপজেলা ভাইস চেযারম্যান ও বিএনপি নেতা মো. মোসাহিদ তালুকদার, বিএনপি নেতা মজিবুর রহমান মুজুমদার, আব্দুল মতিন মির্জা, আব্দুল লতিফ, এমএ কালাম আজাদ, আওলাদ হোসেন তালুকদার,যুবদর নেতা আব্দুল হেকিম, কামরুল হাসান, ছাত্রদল নেতা ওবায়দুর রহমান মুজুমদারসহ প্রায় শতাধিক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Headlines