বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :

নাটোরে শিশু খাদিজাকে ধর্ষনের পর হত্যা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৬ Time View

নাটোর প্রতিনিধি
নিহত শিশু খাদিজাকে ধর্ষন করে হত্যার পর তাকে বস্তায় ভরে দিঘির পানিতে ফেলে দেওয়া হয়েছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। শিশুটির শরীরে কোন বস্ত্র ছিলনা। গোপনাঙ্গে আঘাতের চিহ্ন। সেখান দিয়ে রক্ত বের হওয়া দেখে এধারনা তাদের। তাছাড়া নাজমা বেগমের বাড়ীর পরিত্যক্ত ঘরের কোনে রাখা চৌকির ওপর কাঠের তক্তায় রক্তের দাগ। নাটোরের গুরুদাসপুরে খাদিজা নামের সাত বছরের এক শিশু নিখোঁজের তিনদিন পর বাড়ীর পাশের দিঘি থেকে শুক্রবার তার বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধার করা হয়। এঘটনায় নাজমা বেগম (৩৫), নাজমুল হোসেন (২২), মোশাররফ হোসেন বাদলা (৪৫), শহিদুল ইসলাম (৩৬), দেলোয়ার হোসেন (৪০), নজরুল ইসলামকে (৩৮) অভিযুক্ত করে গুরুদাসপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন শিশুটির বাবা মধু। ওই সময় নজরুল ও নাজমা বেগম ওরফে নাজু ও নাজমার স্বামী মোশাররফ হোসেন বাদলাকে আটক করেছে গুরুদাসপুর থানা পুলিশ। তবে মামলার অন্যতম মুল আসামী নাজমা বেগমের ছেলে নাজমুলকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, উপজেলার খুবজীপুর ইউনিয়নের বিলসা গ্রামের ওই শিশু বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটায় নিখোঁজ হয়। শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে তাদের বাড়ীর পিছনের দিঘিতে একটি বস্তা ভেঁসে থাকতে দেখতে পায় প্রতিবেশী কিবরিয়া। স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে বস্তাবন্দী লাশটি উদ্ধার করে। অনুসন্ধানে জানাযায়, আটককৃত নাজমা বেগমের ছেলে ঢাকাস্থ কাজী নজরুল ইসলাম কলেজে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র নাজমুল হোসেন বুধবার ঢাকা থেকে বাড়ী আসে। ওইদিনই শিশুটি নিখোঁজ হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক প্রতিবেশী জানান, ওইদিন বিকালে নাজমুলকে শিশুটির সাথে কথা বলতে দেখেন তিনি। নিহত শিশুর পিতা মনিরুল ইসলাম ওরফে মধু জানান, নাজমুল তার মেয়েকে ধর্ষন করে হত্যা করে। নাজমুলের মা নাজু ও তার বাবা বাদলার সহযোগিতায় বস্তাবন্দী করে দিঘির পানিতে ভাঁসিয়ে দেয়। তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তিনি। এঘটনায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম দোলন জানান, আপাতঃ দৃষ্টিতে শিশুটির শারিরীক অবস্থা দেখে ধর্ষন করে হত্যা করা হতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ দিলীপ কুমার দাস জানান, নিখোঁজের তিনদিন পর বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মামলা করে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শিশুটির গোপনাঙ্গে আঘাতের চিহ্ন থাকলেও ময়নাতদন্ত রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছেনা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

এই সাইটের কোন লেখা কপি পেস্ট করা আইনত দন্ডনীয়

Headlines