এইচ.এম.সাইফুদ্দীন, ফটিকছড়ি প্রতিনিধি : ফটিকছড়িতে এক গৃহবধূকে হত্যার পর আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার অভিযোগ করেছে নিহতের পরিবার। গৃহবধূর নাম শাহিন আক্তার (২৫)। বুধবার সন্ধ্যায় ফটিকছড়ি উপজেলার ভূজপুর থানাধীন পূর্ব সুয়াবিল তমিজ উদ্দিন মুন্সির বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে।
গৃহবধূর স্বামীর নাম মোঃ ইসমাইল হোসেন। ইমরা আক্তার নামের ৭ মাসের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে তাদের। বিয়ের ৩ বছরের মাথায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানায় মেয়ের পরিবারের লোকজন। গৃহবধূর স্বামী ইসমাঈল হোসেন বলেন, আমার স্ত্রী খুব রাগী, সকালে মোবাইল নিয়ে ঝগড়া হয়েছে। মোবাইল দেবনা বলেছি তারপরও মোবাইল দিয়েছি। বিয়েতে যাওয়ার জন্য দুপুর দেড়টার দিকে আমাকে জুতা মোজা দিয়েছে। বিকালে এসে দেখি সে আত্মহত্যা করেছে। রশি কেটে আমি লাশ নামিয়ে ফেলেছি।
গৃহবধূর ভাই মোঃ আনিসুর রহমান জানান, বিয়ের পর থেকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন এবং যৌতুক এর দাবী করে বিভিন্ন নির্যাতন করে আসছিলেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এমনকি তার বোনের কন্যা সন্তান তার বাবার বাড়িতে জন্ম হয় বলে জানায়। এ হত্যাকাণ্ড পূর্ব পরিকল্পিত বলে তাদের ধারণা। স্বামী ও তার মা ( শাশুড়ি) আমার বোনকে সকালে হত্যা করে বিয়েতে যাওয়ার নাম করে বেড়াতে চলে যায়। তারা কেউ কোন কিছু বুঝার আগেই তার লাশটা রশি কেটে নামিয়ে ফেলেন।এটা আত্মহত্যা নয় পরিকল্পিত ভাবে সাজানো একটা হত্যাকান্ড। খবর পেয়ে ভূজপুর থানা পুলিশ রাত সাড়ে আটটায় লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ভুজপুর থানার ওসি এব্যাপরে কোনো মন্তব্য করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here