আ: রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি :

 

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক প্রতি মন্ত্রী লুৎফর রহমান খান আজাদের সাথে সমন্বয় না করে জাতীয় নির্বহী কমিটির সদস্য ওবায়দুল হক নাসির তার পছন্দের লোক দিয়ে উপজেলা ও পৌর আহবায়ক কমিটি গঠন করায় ঘাটইলের বিএনপি মহা সংকটে পরেছে। বিশেষ করে আওয়ামী এজেন্ট ও নিষ্ক্রিয়দের দিয়ে কমিটি গঠনের অভিযোগ এনে সস্ত্রিয় ও ত্যাগী নেতা কর্মীরা তা প্রত্যাখান করেছে। ঘষিত কমিটি নিয়ে জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ^াসীদের মাঝে আলোচনা সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। তাদের মতে নির্যাতন, হামলা ও মামলার শিকার নেতা-কর্মীদের বাদ দিয়ে নাসির শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শের সাথে বেইমানি করেছে।

ঘাটাইল উপজেলা ও পৌর বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতার সাথে কথা বলে জানাযায়, বাশাইলের বাসিন্দা ওবায়দুল হক নাসির ঘাটাইলে শেকর ঘারতে তার পছন্দের লোক দিয়ে কমিটি গঠন করেছে। আওয়ামী এজেন্ট ও নিষ্ক্রিয় দের দিয়ে গঠিত এ কমিটিতে পরিক্ষত নেতা কর্মীদেও দুরে রাখা হয়েছে। দিন দিন এ কমিটি ভেঙ্গে নতুন কমিটি গঠনের দাবী জোরালো হচ্ছে। অথচ ওবায়দুল হক নাসির ও দাবী উপেক্ষা করে তড়িঘড়ি করে ইউনিয়ন আহব্বায়ক কমিটি ঘঠনের চেষ্টা চালাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে ঘাটাইলের বিএনপি ধ্বংসের আশঙ্কা রয়েছে। দীর্ঘ দিন দরে ঘাটাইলের বিএনপির নেতৃত্ব দিয়ে আসা নেতারা বলছেন, জেলা নেতাদের আন্তরিকতার অভাবে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তাদের দাবী সাবেক প্রতি মন্ত্রী বিএনপি চেয়ার পারসনের উপদেষ্টা লৎফর রহমান খান আজাদের সাথে সম্নয় ছাড়া চলমান ঘাটাইল বিএনপির সংকট সমাধানের কোন পথ খোলা নেই।

সুবিধা বাদীদের দীয়ে কমিটি গঠিত হওয়ায় সক্রিয় ও ত্যাগী নেতারা রাগে ক্ষোভে ফুঁসে রয়েছে। ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবিতে তারা নানা পরিকল্পনা করছে। তাদের দাবী উপজেলা ও পৌর আহবায়ক কমিটিতে যারা স্থান পেয়েছে তাদেও বিগত ২০ বছওে দলীয় কোন কর্ম সূচিতে পাওয়া যায়নি। সরকারী দলের নেতাদেও খুশি রাখতে বিএনপি নোতাদেও সাথে তারা আদাব-ছালাম বিনিময় পর্যন্ত করেনি। সরকার বিরোধী আন্দোলনের সময় তারা বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে বসে তামাসা দেখেছে। সঙ্গত কারনে তাদের সাথে আওয়ামীলীগ নেতাদের সখ্যতা রয়েছে। এই নেতাদের নেতৃত্বে ইউনিয়ন কমিটি হচ্ছে শুনে সক্রিয় ও ত্যাগী নেতাদের ক্ষোভ আরও বেড়েছে। সুধী মহলের দাবি জেলা নেতারা বিতর্কিত কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করলে ত্যাগীদের ক্ষোভ প্রসমিত হতো। কিন্তু তাদের নীরবতা ঘাটাইলের বিএনপির সংকট আরও ঘনিভূত হচ্ছে। নাসির অনুসারিরা কোন সভা-সমাবেশের ঘোষনা দিলে তা প্রাতরোধের সদা সচেষ্ঠ রয়েছেন আজাদ অনুসারীরা। এ দু’গ্রুপের বিবধমান দ্বন্দে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘষের আশঙ্খা রয়েছে।

আজাদ আনুসারীদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে যে সময় কেন্দ্রীয় বিএনপি দীর্ঘদিন যারা দলীয় কর্মকান্ডে জড়িত নেই তাদের পরিবর্তনের কথা ভাবছে ঠিক সে সময় নাসির যোগ্য ও ত্যাগীদের বাদ দিয়ে নিষ্ক্রিয়দের দিয়ে কমিটি গঠন করেছে। তাদের দাবী কারা ঘাটাইলের রাজনীতিতে সক্রিয় জেলা বিএনপি টিম গঠন করে তা মনিটরিং করুক। তাদের জরিপে যারা ত্যাগী তারাই নেতৃত্বে আসুক। অভিযোগ উঠেছে সুধু মূলদল নয় অঙ্গ সংগঠন গুলোতেও নাসির নিষ্ক্রিয়দের জায়গা করে দিয়েছে।

বির্তকীত ঘাটাইলের বিএনপির কমিটির কেন্দ্র বা জেলা যে কোন সময় স্থগিত করতে পারে এ আশঙ্খায় দ্রুত ইউনিয়ন আহবায়ক কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে নাসির অনুসারীরা। সে কমিটিতে নিষ্ক্রিয় ও আওয়ামী এজেন্টদের পাশাপাশি প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে কৃষক শ্রমিক জনতালীগ নেতা ঘাটাইল পৌর মেয়র আব্দুর রশিদ মিয়ার অনুসারীদের । এ কারনে ইউনিয়ন পর্যায়ে ও জায়গা পাচ্ছে না বিগত আন্দোলানে মামলা-হামলা সহ নানা কারনে ক্ষতি গ্রস্থ নেতা কর্মীরা।

এ বিষয়ে ঘাটাইল পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি,সাবেক পৌর মেয়র মঞ্জুরুল হক মঞ্জু বলেন সাবেক প্রতি মন্ত্রী বিএনপি চেয়ার পারসনের উপদেষ্টা লুৎফর রহমান খান আজাদের সাথে সম্মনয় না করে কমিটি গঠন করে একটি মহল ঘাটাইলের বিএনপি ধ্বংসের জন্য গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। বিএনপি কে সুসংগঠিত করতে তার মোটেও আন্তরিক নয়। সাধারন কিছু নেতা কর্মীকে ভূল বুঝিয়ে ষড়যন্ত্রের ফাঁদে ফেলেছে। তিনি আরো বলেন, ঘাটাইলের বিএনপি সুসংঘঠিত করতে হলে ঘোষিত কমিটির কার্যক্রম বন্ধকরে সম্মনিত কমিটি গঠন করতে হবে।

টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সাবেক কোষাদক্ষ মাইনুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী দালাল ও নিষ্ক্রিয়দের দিয়ে গঠিত ঘাটাইল উপজেলা এবং পৌর বিএনপির কমিটি গঠনের বিষয়টি উর্ধতন নেতাদের অবগত করানো হয়েছে । আশা করছি অতি অল্প সময়ের মধ্যে নেতৃবৃন্দ লুৎফর রহমান খান আজাদের সাথে সম্মনয় করে সংকট নিরসনের উদ্যোগ নিবেন।

ঘাটাইল পৌর বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক ফারুক হোসেন ধলা বলেন, বর্তমান ঘোষিত আহবায়ক কমিটি ঘাটাইলের বিএনপিকে সুসংগঠিত না করে ধ্বংস করছে। তড়িঘড়ি করে ইউনিয়ন কমিটি গঠন করে তারা দেখাতে চাচ্ছে তাদের জনবল আছে অথচ সত্যিকারে শহীদ জীয়ার আর্দশের কোন সৈনিক তাদের সাথে নেই।

সাবেক ছাত্র নেতা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক মোহাম্মদ শামীম মিয়া বলেন, বর্তমান আহবায়ক কমিটি ঘাটাইলে বিএনপি সুসংগঠিত করার উদ্যেশ্যে গঠিত হলে সেখানে আওয়ামী এজেন্ট ও নিষ্ক্রিয়রা স্থান পেত না। মুলত বর্তমান কমিটি ঘাটাইলের বিএনপি ধ্বংসের উদ্যেশ্যে ঘঠিত।

বিএনপি নেতা রাশেদ আজীজ বলেন, ঘাটাইলের বিএনপি রাজনিতীতে লুৎফর রহমান খান আজাদের বিকল্প নেই। ঘাটাইল বাসী তার নেতৃত্বে জাতীয়তাবাদী দলের পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ থাকবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here