পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী সদর উপজেলাধীন লোহালিয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডে দিনে দুপুরে ফিল্মি স্টাইলে সন্ত্রাসী হামলা করে বসত ঘর কুপিয়ে ভাংচুর করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে গেছে একই ইউনিয়নের সাখাওয়াত ঘরামী, সেবাহান ঘরামি, মিঠুন ঘরামী, রুবেল ঘরামী, সবুজ ঘরামী, কাওসার ঘরামী সহ এক দল সন্ত্রাসী। লোহালিয়া ইউনিয়নের মোঃ ইউনুস খান এর বসত ঘরে ২৩ জানুয়ারি বেলা আনুমানিক ২.৩০ মিনিটে এঘটনাটি ঘটে।
এ ঘটনায় স্থানীয় মোঃ ইয়াকুব আলী খান, মোঃ হাচেন খান, জাহাঙ্গীর মৃধা, মোঃ রুহুল আমিন এবং ইউনুস খান এর স্ত্রী সালেহা খাতুন ও ছেলে মোঃ ইব্রাহীম খান সাংবাদিকদের জানায়, ঘটনার দিন প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ জন সন্ত্রসী একত্রিত হয়ে এ হামলা চালায়। সন্ত্রাসীরা যখন বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র ও লাটি সোটা নিয়ে বলতে বলতে আসে যে আজকে ইউনুসের মাথা ও হাত-পা কেটে নিয়ে যাব এ কথা শুনে ইউনসের মেয়ে বাবাকে ও ভাইদের জানায় এবং তারা প্রান বাচাঁতে দৌড়ে পাশের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এসময় ইউনুস খানের স্ত্রী সালেহা খাতুন নামাজ পড়া অবস্থায় ছিলেন। তখন সন্ত্রাসীরা ঘরে প্রবেশ করে ঘরের বেড়া, দরজা, জানালা ও আসবাবপত্র ভাংচুর শুরু করে। তাদের এ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড দেখে সালেহা খাতুন ডাকচিৎকার শুরু করেন এবং বলে তোমরা কারা এগুলো কি করছো। তখন সন্ত্রাসীরা তার কাধের উপর রামদা ঠেকিয়ে বলে বেশি কথা বলেলে প্রানে মেরে ফেলব এবং বলে তোর স্বামী কোথায় ওর মাথা কাটবো। এসময় তারা ইউনুসকে না পেয়ে ঘরে থাকা নগদ দশ হাজার টাকা, একজোড়া স্বর্নের কানের দুল ও একটি স্বর্নের চেইন ও দুইটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। স্থানীয়রা জানায় কেন এই সন্ত্রাসী হামলা তার কিছুই বুঝতে পারে নাই। ইউনুস খানের সাথে কারো তেমন বিবাদ ছিল না। এ সন্ত্রাসী হামলায় আইনের কাছে সুবিচার দাবী করেন ইউনুস খান ও তার পরিবার। এঘনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here