২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১৮৭০ ডেঙ্গু রোগী ভর্তি

প্রাণরে বাংলাদশে প্রতিবেদক:

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও এক হাজার ৮৭০ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

এসব রোগীর মধ্যে ঢাকায় এক হাজার ৫৩ জন এবং সারাদেশে ৮১৭ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ হিসেবে ঢাকা ও গ্রামে প্রায় সমান পরিমাণ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন।

 

ঢাকাকেন্দ্রিক এই রোগটির আতঙ্ক এখন সর্বত্রই ছড়িয়ে পড়েছে। রোববারও দেশের বিভিন্ন স্থানে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। চলতি বছর আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ হাজার ছুঁইছুঁই করছে। রোববার চলতি বছরে এক দিনে রেকর্ড সংখ্যক রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত ডেঙ্গুতে ১৮ জনের মৃত্যু নিশ্চিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে বিভিন্ন গণমাধ্যমে অর্ধ শতাধিক মৃত্যুর খবর ইতোমধ্যে এসেছে।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সকালে মারা গেছেন পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক শাহাবুদ্দীন কোরেশীর স্ত্রী ৫৪ বছর বয়সী সৈয়দা আক্তার।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডাক্তার আয়েশা আক্তারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, রাজধানীসহ দেশের সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ১ জানুয়ারি থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত প্রথম ছয় মাসে সর্বসাকুল্যে ভর্তি হয়েছেন মাত্র ২ হাজার ২৮৭ জন। এ ছাড়া জুলাই মাসে ১৫ হাজার ৬৫০ জন এবং চলতি আগস্ট মাসের গত চারদিনে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৬ হাজার ৯৬৭ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন্স সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, সরকারি হাসপাতালের মধ্যে ডেঙ্গু আক্রান্ত সবচেয়ে বেশি রোগী ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। রোববার বিকেল ৫টা পর্যন্ত ঢামেক হাসপাতালে দুই হাজার ৯২৮ জনের মধ্যে ৬৯৭ রোগী ভর্তি ছিলেন। মিটফোর্ডে ৪২৮ জন, ঢাকা শিশু হাসপাতালে ১৪৮ জন, সোহরাওয়ার্দীতে ৩৬৯ জন, হলি ফ্যামিলিতে ৭৪ জন, বারডেমে ৬৩ জন, বিএসএমএমইউতে ১৬৩ জন, পুলিশ হাসপাতালে ১৪৫ জন, মুগদা হাসপাতালে ৩৮০ জন, বিজিবি হাসপাতালে ২৮ জন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ১৮৩ জন, কুর্মিটোলায় ৩১৯ জন ভর্তি রয়েছেন। এ ছাড়া ৩৬ বেসরকারি হাসপাতালে এক হাজার ৮৭২ জন চিকিৎসাধীন আছেন।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হযে রাজধানীর বাইরে ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন জেলায় ৪৪৩ জন, ময়মনসিংহ বিভাগে ২৬৪ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৪১৬ জন, খুলনা বিভাগে ৪২১ জন, রাজশাহী বিভাগে ৩৪২ জন, রংপুর বিভাগে ২১৫ জন, বরিশাল বিভাগে ২২৯ জন এবং সিলেট বিভাগে ৯৯ জন জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।