Amar Praner Bangladesh

অভয়নগরে কৃষক নীল সাগর ও মেটাল শীট কোম্পানীর হাইব্রিড কুমড়ার সংগ্রহ করে সর্বশান্ত হয়ে পড়েছে

সিরাজুল ইসলাম, অভয়নগর থেকে ঃ

অভয়নগর উপজেলার উত্তর দিয়াপাড়া গ্রামের সাবেক ইউপি মেম্বর গাজী কামরুল ইসলাম, সামাদ গাজী ও কাসেম শেখ এই তিন কৃষকের নয় বিঘা জমিতে হাইব্রিড কুমড়ার বীজ বপন করে গাছে কোন ফল না ধরায় পাঁচ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। নীল সাগর ও মেটাল শীট কোম্পানীর হাইব্রীড কুমড়াসহ বিভিন্ন ধরণের বীজ সংগ্রহ করে কৃষকরা প্রতারণার  শিকার হচ্ছেন। অনুসন্ধানে জানা যায়, বর্তমানে বীজ ব্যবসায় অভিনব কৌশল অবলম্বন করে ব্যঙের ছাতার মত ডিলার গজিয়ে বিভিন্ন কোম্পানীর প্যাকেট ব্যবহার করে নি¤œমানের বীজ কৃষকের মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছে, যার ফলে অভয়নগর এলাকায় অনেক কৃষক বীজ সংগ্রহ করে ক্ষতিগ্রস্থ। এ বিষয়ে কামরুল ইসলাম লিখিত অভিযোগ করেন, গত দুই মাস পূর্বে নয় বিঘা জমি বপনের জন্য তিন কৃষকের হাইব্রীড কুমড়ার বীজ নওয়াপাড়া বাজারের ডিলার সুশান্তর নিকট থেকে পর্যায়ক্রমে ১৮৫০০/- টাকার বীজ সংগ্রহ করে জমিতে বপন করে। গাছ পর্যায়ক্রমে দেড় মাস অতিবাহিত হওয়ার পরে গাছে কোন ফুল জালি দেখা যায় না, যার ফলে তিন কৃষক হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়ে। তারা  উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাসহ কোম্পানী, ডিলার ও সংশ্লিষ্ট দোকানদারের নিকট অভিযোগ জানিয়ে কোন প্রতিকার পায়নি। এ ব্যাপারে নীল সাগর কোম্পানীর বিপণন ম্যানেজারের সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমরা জমিতে যেয়ে দেখে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করব। কিন্তু ১৫/২০ দিন গত হয়ে গেলেও তাদের কোন তৎপরতা নেই। স্থানীয় ডিলার সুশান্ত জানান, কোম্পানী বীজ দেয় আমি বিক্রি করি, এর বাইরে আমার অন্য কোন ভুমিকা নেই। উপজেলা উপসহকারী কৃষি অফিসার জানান, আমি সরজমিনে দেখে তদন্ত রিপোর্ট পেশ করেছি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার নিকট। তিনি আরো জানান, অধিকাংশ গাছ ভাইরাসজনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জানান, আমি এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি, আগামী সোমবার উভয় পক্ষকে ডেকেছি। জেনে বুঝে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নি¤œ মানের বীজের সরবরাহ বাড়তে থাকলে কৃষক মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হবে, ব্যহত হবে দেশের কাংখিত সবজী উৎপাদান। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কৃষি বিষয়ক কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন ভুক্তভোগী কৃষকেরা।