রবিবার, ০২ এপ্রিল ২০২৩, ১২:১০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
প্রয়োজনে ডিবি পুলিশকে সহযোগিতা করবো: হিরো আলম আমিন মোহাম্মদ গ্রুপের চেয়ারম্যান মারা গেছেন ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু, সহযাত্রীর নাম বাধ্যতামূলক কুষ্টিয়ায় সাবেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় স্ত্রী’র সাংবাদিক সম্মেলন তুরাগে ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ওমরাহ পালনকালে কাবার সামনে স্ত্রীর মৃত্যু, মক্কাতেই দাফন টঙ্গীতে নির্বাচনী প্রচারে না যাওয়ায় ব্যবসায়ীর দোকানে হামলা কাউন্সিলর প্রার্থীর জলঢাকায় জলমহাল ইজারায় যোগ্য সমিতির স্থলে ভায়া সমিতিকে ইজারা প্রদানের অভিযোগ মতিউর রহমান ও শামসুজ্জামানের বিরুদ্ধে মামলায় ৪১ নাগরিকের প্রতিবাদ পুলিশের ধাওয়া খেয়ে টিনের চালে চোর, নামালো ফায়ার সার্ভিস

অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী বেকুটিয়া সেতুর আগামীকাল উদ্বোধন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ২৮ Time View

 

 

আল-আমিন হোসাইন, পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ

পিরোজপুরের কচা নদীর ওপর নির্মিত অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী বেকুটিয়া সেতু উদ্বোধনের দিন গণনা শেষ। আগামীকাল ৪ সেপ্টেম্বরই দ্বার খুলতে যাচ্ছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কোটি মানুষের স্বপ্নের এই সেতুর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সেতুটির উদ্বোধন করবেন। কাউখালীর বেকুটিয়া ও পিরোজপুরের কুমিরমারা পয়েন্টে কঁচা নদীর ওপর নির্মিত সেতুটির নামকরণ করা হয়েছে বঙ্গমাতা বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সেতু।

দক্ষিণাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটি চালু হলে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সাথে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগ নিরবচ্ছিন্ন হবে। এই বেকুটিয়া সেতু দক্ষিণাঞ্চলের দুই বিভাগকে এক করে দিয়েছে। সেতুটি চালু হলে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত, পায়রা ও মংলা সমুদ্র বন্দর এবং বেনাপোল ও বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরকে সরাসরি সড়ক পথে সংযুক্ত করবে।

এ অঞ্চলে ২১টি জেলার সাথে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ ও যাতায়েতের সুযোগ তৈরি করে দিচ্ছে অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু। দৃষ্টিনন্দন সেতুটি দেখতে প্রতিদিন কৌতূহল মানুষের ঢল নামে। চীনা প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরকালে ২০১৬ সালের ১ নভেম্বর অষ্টম চীন-বাংলাদেশ মৈত্রী সেতু নির্মাণে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। এর দু’বছর পরে ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর ‘প্রি-স্ট্রেসড কংক্রিট বক্স গার্ডার’ ধরনের এ সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কঁচা নদীর ওপর প্রায় এক কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে এই সেতুটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৮৯৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৬৫৪ কোটি টাকা গ্র্যান্ড অনুদান দিয়েছে চীন সরকার। বাকি ২৪৪ কোটি টাকার জোগান দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। মূল সেতুটির উভয় প্রান্তে ৪৯৫ মিটার ভায়াডাক্টসহ সর্বমোট দৈর্ঘ্য প্রায় দেড় কিলোমিটার। ১৩.৪০ মিটার প্রস্থের সেতুটির পিরোজপুর ও বরিশাল প্রান্তে এক হাজার ৪৬৭ মিটার সংযোগ সড়কসহ পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা নির্বিঘ্ন রাখতে আরো দু’টি ছোট সেতু ও বক্স কালভার্ট নির্মিত হয়েছে।

কঁচা নদীর সর্বোচ্চ জোয়ার থেকে ৬০ ফুট উচ্চতায় নির্মিত সেতুটির তলদেশ দিয়ে চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্রবন্দর এবং বরিশাল ও খুলনা নদী বন্দরে পণ্য ও জ্বালানিবাহী বড় ধরনের নৌযান চলাচলও নির্বিঘ্ন থাকবে। পাশাপাশি নৌবাহিনীর ফ্রিগেটসহ যেকোনো ধরনের জাহাজ চলাচলেও কোনো প্রতিবন্ধকতা থাকছে না। নদীর মধ্যভাগে সেতুটির সবচেয়ে প্রশস্থ স্প্যানটিতে ১২২ মিটার এলাকা নৌযান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়েছে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

এই সাইটের কোন লেখা কপি পেস্ট করা আইনত দন্ডনীয়