Amar Praner Bangladesh

আওয়ামী লীগ নামটাই এখন বদনাম: নজরুল ইসলাম

 

 

প্রাণের বাংলাদেশ ডেস্কঃ

 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন , আওয়ামী লীগ নামটা এখন বদনাম হয়ে গেছে। এই সরকারকে সরাতে হলে জান দিতে হবে গুলি খেতে হবে এরপরও পিছু হটা যাবে না।আমাদের লড়াইয়ে যারা যুক্ত হবে,তাদের প্রাণ ঝরে যেতে পারে তবুও তারা লোভে পড়বে না।

রোববার (১৫ মে) দুপুরে ডিআরইউ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। বাংলাদেশ লেবার পার্টির প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা আবদুল মতীনের ২৭তম মৃত্যুবাষির্কীতে ‘নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন চাই’ শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে লেবার পার্টি।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, যখন কোন ক্ষমতাসীন দল যেকোনো উপায়ে ক্ষমতায় থাকতে চায়৷ ক্ষমতায় থাকার জন্য যেকোন শর্তে, যে কোনো আপোসে, যেকোনো ষড়যন্ত্রে রাজি আছে। তখন তাকে সরানোর জন্য সংগ্রাম ছাড়া কোন উপায় থাকে না। তাকে আলোচনার মধ্যমে, যুক্তি দিয়ে তো বোঝাতে পারবেন না। কারণ তারা জানে যে তারা জনগণের ভোটে ক্ষমতায় আসেনি এবং ভবিষ্যতে যদি নির্বাচন হয় তাহলে তারা ক্ষমতায় আসতে পারবে না।

বাংলাদেশের জনগণের উপর একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের গবেষনার উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, ৯০ ভাগ মানুষ নির্দলীয় সরকারের অধিনে নির্বাচন চায়। ৮৫ ভাগ মানুষ মনে করে দেশের অবস্থা ভালো না। এই গবেষণা যদি এখন কেউ করে তাহলে দেখবেন ৯০ ভাগ এখন ৯৫-৯৬ হয়ে গেছে। কিন্তু তারপরও কি শুনবে এই সরকার? না। শুনবে না।

তিনি বলেন, কেউ যদি মনে করে এখন যে রাজনীতি চলছে এটাই রাজনীতি। এর আগে বাংলাদেশে কিছু হয়নি তাহলে ভুল। এই সরকার আসার পর থেকে আমরা লড়াই লড়াই বলছি, আন্দোলনটাকে জিয়ে রেখেছি। এটা যদি না করতাম তাহলে কি চাইলেই এখন আন্দোলন করতে পারতাম? দীর্ঘ সময় ধরে আন্দোলন সংগ্রাম করছি তার একটা গুরুত্ব আছে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, লড়াইয়ে ময়দানে প্রমাণ হবে কে কত বড় লিডার। মুখ দিয়ে দেশ উদ্ধার করা যাবে না। মুখের কাজ না। প্রয়োজনে জান দিতে হবে। গুলি খেতে হবে। মার খেতে হবে। আমাদের অনেক নেতা নিহত হয়েছেন, খুন হয়েছেন, গুম হয়েছেন। কিন্তু তারা আন্দোলনের মাঠে ছিলেন। সবাইকে নিয়ে আন্দোলন করতে হবে বলেও জানান তিনি।

‘অনেক বলে আমরা ঘরের মধ্যে মিটিং করি। আমাদের ঘরে মিটিং করা দোষ? আমরা না হয় ঘরে মিটিং করি। আপনাদের বাইরে যেতে নিষেধ করছে কে? আপনারা কিছু করবেন না। অন্যরা কিছু করলে তাদের সমালোচনা করবেন। সমালোচনার অধিকার আছে আপনাদের?’

‘বিএনপি নেতাদের পদত্যাগ করা উচিত’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমন মন্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, আপনারা ২১ বছর ক্ষমতার বাইরে ছিলেন। পদত্যাগ করেছিলেন? আমাদের পদত্যাগ করার কথা বলার উনি কে? বিএনপি তো সেই দল যাদেরকে ১৯৮২ সালে জোর করে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়। আন্দোলন সংগ্রাম করে ১৯৯১ সালে ক্ষমতায় আসে। এটা ইতিহাস।

লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মুস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন দলটির মহাসচিব লায়ন ফারুক রহমান, যুগ্ম মহাসচিব ওবায়দুল কবির, গণ-অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নূর, কৃষক দলের লায়ন মিয়া মো. আনোয়ার, কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমূখ।