Amar Praner Bangladesh

উত্তরায় চিকিৎসার নামে প্রতারনার ভয়ানক ফাঁদ হসপিটালে বুয়াদের নার্স বানিয়ে রোগীদের চিকিৎসা

 

রবিউল আলম রাজু :

 

রাজধানীর উত্তরা ১২ নং সেক্টরের শাহ মাখদুম রোডে অবস্থিত” মেডিকেলের হাসপাতাল যা এর আগেও একবার প্রসাসন থেকে বন্ধ করে দেয়া হয়েছিলো। এবার আবারো-এমবিবিএস ডাক্তারদের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বানিয়ে চিকিৎসা, বেশি ফি আদায় ও একই ডাক্তার দিয়ে অপারেশন করানোর অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়- ওয়ার্ড বয়দের দিয়ে এক্স-রে করানো এবং ওয়ার্ড বুয়াদের নার্স বানিয়ে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেওয়ার অনেক প্রমান পাওয়া গেছে। মেডিকেল হসপিটালে নেই উন্নত প্যাথলজি বিভাগ, ট্যাকনিশিয়ান ও নিয়মিত বিশেষজ্ঞ ডাক্তার। হাসপাতাল নামক একটি সাইনবোর্ডই তাদের সম্বল এবং প্রতারনাই তাদের একমাত্র পুজি।

তথ্য নিয়ে যানা যায়- এদের মাসিক ৭ লক্ষাধিক টাকা বিল্ডিং ভাড়া ও ৮ লক্ষাধিক টাকা স্টাফ খরচ এবং ২ লক্ষাধিক টাকা সার্ভিস চার্জসহ হাসপাতালটিতে মাসে ২০ লক্ষাধিক টাকা খরচ হয়ে থাকে। তাই খরচ উঠাতে ও পকেট ভারি করতে রোগিদের সাথে প্রতারনা করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই বললেই চলে।সঠিক চিকিৎসা সেবার ফিতে বিল্ডিং ভাড়াই জমানো কঠিন হয়ে পড়ে কর্তৃপক্ষের। এজন্য স্টাফদের খরচ আর সার্ভিস চার্জ পরিশোধে রোগীদের প্রতারনার ফাঁদে ফেলতে হয় তাদের। হাসপাতালটির আইপিডি প্রিভিউ বিলের কাগজে হসপিটাল ও ডক্টরস বিলে মিলে প্রতারনার ভয়ানক ফাঁদ।

আরো তথ্য নিয়ে যানা যায়- প্রসূতি ও স্ত্রী রোগ বিভাগে এমবিবিএস ডাক্তারদের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বানিয়ে ১ হাজার টাকা করে ফি আদায়। হাসপাতালটির এনআইসিইউ’তে সাধারন বেড ছাড়া কিছুই নেই। নেই জরুরি ভেন্টিলেটর ও লাইফ সাপোর্ট এর চিকিৎসা সামগ্রী। এমনকি এনআইসিইউ’র ইন্চার্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তার হওয়ার কথা থাকলেও চিকিৎসা দেওয়া হয় এমবিবিএস ডাক্তার দিয়ে।

সকল বিষয় নিয়ে সাংবাদিক সমাজ ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডাঃ এ.কে.এম মাজহারুল ইসলাম এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন- আমি এবিষয়ে কিছু বলতে পারবো না। আমি পটুয়াখালিতে বেড়াতে এসেছি।