Amar Praner Bangladesh

উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় এগিয়ে রূপসা-তেরোখাদা-দিঘলীয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের রক্ষা করে চলেছেন

 

 

এইচ এম রোকন, খুলনা :

 

খুলনা -৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদীর প্রতিটি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে রূপ দিচ্ছেন। উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় এগিয়ে যাচ্ছে রূপসা,তেরোখাদা,দিঘলীয়ার জনপদ।তারই ধারাবাহিকতায় মাননীয় সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী শিয়ালী মন্দিরের যাতায়াতের রাস্তা বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে।

খুলনা জেলার রূপসা উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের হিন্দু অধ্যুষিত গ্রাম শিয়ালী ও গোয়াড়া। এখানে প্রায় দশ হাজার লোকের বসবাস। এই দুই গ্রামে কেউ মারা গেলে তাদের একমাত্র শবদাহ পোড়ানোর স্থান হলো শিয়ালী গোয়াড়া মহাশ্মশান। আর এই শ্মশান ঘাটে যাওয়ার জন্য যেই রাস্তাটি ব্যবহার করা হয় সেটি সম্পূর্ণ মাটির রাস্তা। বর্ষা মৌসুমে কেউ মারা গেলে শবদাহ নিয়ে গ্রামবাসীকে পড়তে হয় মহাবিপদে। এছাড়াও কাদা মাটি ভেঙ্গে মানুষ চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হয়।

স্থানীয় বাসিন্দারা রাস্তাটি সংস্কারের দাবি জানালে। খুলনা-৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী এলাকাটি পর্যবেক্ষণ করে রাস্তাটি পাকা করে দেওয়ার বিষয়ে শিয়ালীবাসীকে আশ্বাস্ত করেন।

সেই মোতাবেক শত বছরের কর্দমাক্ত রাস্তাটি সংস্কার এর জন্য তিনি ৫৩ লক্ষ ৯ হাজার টাকা বরাদ্দের ব্যাবস্থা করে দেন। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ আরিফ হোসেন রোববার (২৭ মার্চ) রাস্তাটি নির্মান কাজের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সূত্রমতে রাস্তাটি শিয়ালী পুলিশ ক্যাম্পের অভিমুখ থেকে আশ্রয়ন প্রকল্প হয়ে শিয়ালী মহাশ্মশান পর্যন্ত ৭০০ মিটার ডাবল ইটের সলিং এর কাজ হবে। এব্যাপারে শ্মশান কমিটির সহভাপতি হিল্লোল মুখার্জি জানান, খবরটি শুনে দুই গ্রামবাসীর জনগণের মধ্যে আনন্দ অশ্রুর সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, এ রাস্তাটি নির্মিত হলে দুইটি গ্রামের হিন্দু মুসলিম বসবাসের কোন সমস্যা থাকবে না। তিনি এমপি মহোদয়কে দুইটি গ্রামের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানান।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শক্তিপদ বসু বলেন, এ রাস্তাটি নির্মিত হলে দুইটি সম্প্রদায়ের মধ্যে মঙ্গল বয়ে আনবে এবং দীর্ঘদিনের দুই গ্রামের মানুষের কষ্টের অবসান ঘটবে।

রাস্তাটি সংস্কারের পাশাপাশি মসজিদ ও মন্দির সংস্কার এর জন্যও তিনি নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন উপজেলার প্রত্যন্ত এই জনপদ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে আছে। সৌহার্দ্য ও আন্তরিক পরিবেশের সঙ্গে যুগ যুগ একসঙ্গে মিলেমিশে সমাজবদ্ধ হয়ে বাস করছেন এই এলাকার মানুষ। বর্তমান সরকারের ও মাননীয় সংসদ আব্দুস সালাম মূর্শেদীর প্রচেষ্টায় উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অক্ষুণ্ণ আছে গোটা অঞ্চলে। বিগত যে কোনো সময়ের তুলনায় বর্তমান সংসদের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন চোখে পড়ার মতো।