Amar Praner Bangladesh

কুমিল্লার ছেলে হাফেজ আবদুল্লাহ এর প্রথম গান”ওই এলো রমজান “ব্যাপক সাড়া

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :

 

পবিত্র মাহে রমজানে প্রকাশ পেয়েছে এই সময়ের আলোচিত কন্ঠশিল্পী হাফেজ আবদুল্লাহ বিন আব্দুল আউয়াল এর নতুন গান “ওই এলো রমজান”। প্রকাশের পরপরই গানটি ইউটিউব, টিকটক সহ একাধিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি করে। ইতিমধ্যে এই গানটি ইউটিউবে দেখেছেন অনেকে। সবমিলে প্রশংসায় ভাসছে ‘ওই এলো রমজান ” গানটি।

এ প্রসঙ্গে শিল্পী হাফেজ আবদুল্লাহ বিন আব্দুল আউয়াল বলেন,”ওই এলো রমজান “আমার নতুন একক গান। গানটির মধ্যে বেশ মজা আছে এবং ভিডিওটিও মজার ও কালারফুল করার চেষ্টা করেছি। দর্শক-শ্রোতাদের ভালোবাসায় আমি মুগ্ধ।”

“ওই এলো রমজান” সাহিদুল মোর্সালিন এর লেখা বহুল প্রত্যাশিত “ওই এলো রমজান” গানটির শুরু এভাবেই। সিন্দাবাদ ইউটিউভ চ্যানেল থেকে গানটি শুক্রবার (৮ এপ্রিল ২০২২ খ্রিঃ) সন্ধায় রিলিজ পেয়েছে।

রমজান উপলক্ষে বেশ কিছু অসাধারণ গানের মধ্যে ওই এলো রমজান গানটি উল্লেখযোগ্য। গানে একদিকে যেমন ফুটে উঠেছে জীবনবোধ, জীবনতত্ত্ব; তেমনি রমজানের রহমত বরকত মাগফেরাতের কথা প্রকাশিত হয়েছে।

কেউ হয়তো এই গানটিকে জীবনমুখীও বলতে পারেন। আবার কেউ গানের ভেতর জীবন থেকে সময় চলে যাবার একটি হাহাকার খুঁজে পাবেন।

গানটি গেয়েছেন নতুন প্রজন্মের আলোচিত শিল্পী হাফেজ আবদুল্লাহ বিন আব্দুল আউয়াল। গানের সুর করেছেন সুর সম্রাট শিল্পী এ এন এম মশিউর রহমান।

“ওই এলো রমজান”গানের বিষয়ে সাংবাদিক কবি ও লেখক মোঃআবদুল আউয়াল সরকার বলেন, আমরা কমার্শিয়াল গান শুনে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি। এই গানের লেক কথিত কমার্শিয়াল ধারার বাইরে এসে জীবনের নানা আঙ্গিক নিয়ে গান লিখেছে। হ্যাঁ, তাতে বিনোদন যেমন থাববে, আবার ভাবনার জায়গাটও থাকছে। মূলত আমি চাই, গানে একটি নতুন ধারা তৈরি হউক।

গানের শিল্পী হাফেজ আবদুল্লাহ বিন আব্দুল আউয়াল বলেন, আমি কুমিল্লার ছেলে। আমার বাড়ি কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলার সুবিল ইউনিয়নের ওয়াহেদপুর গ্রামের রেয়াজ উদ্দিন ডাঃ বাড়ি। বাবা মোঃআবদুল আউয়াল সরকার। পেশায় একজন শিক্ষক। মা মোসাম্মৎ স্বপ্নাহার বেগম।সরকারি কর্মকর্তা। সংগীত সিড়িঁতে ওঠার জন্য সকলের দোয়া ও সহযোগিতা চাই। সব সময় সবার অনুপ্রেরনা চাই।

আমি যাতে কুমিল্লাবাসীসহ সকলের সহযোগিতা নিয়ে ইসলামি সংগীতের সাথে থেকে সকলকে নতুন নতুন গান উপহার দিতে পারি। সকলের দোয়া কামনা করছি। আমি সাংস্কৃতিক অঙ্গনে একজন তরুন শিল্পী হিসেবে নিজেকে নিয়োজিত রাখতে চাই। সাহিদুল মোর্সালিন ভাইয়ের লেখার ধার একেবারে ব্যতিক্রম। তিনি সময়ের গান লেখেন। জীবনের গান লেখেন। তার গান গাইতে পেরে আমার নিজেরও ভালো লাগছে। আমি কথা দিতে পারি, “ওই এলো রমজান”গানটি সব বয়সী মানুষের ভালো লাগবে।