কুষ্টিয়ায় জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে ১০০ কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি বিক্রয়ের অভিযোগে নেওয়া হয়েছে আইনী ব্যবস্থা

 

 

সোহেল পারভেজ, কুষ্টিয়া থেকেঃ

 

কুষ্টিয়ায় জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে ১০০ কোটি টাকা মূল্যে সম্পত্তি বিক্রয়ের চেষ্টার অভিযোগে মূলহোতা মহিবুল ইসলামকে আটকের পর আদালতে প্রেরণ জিজ্ঞাসাবাদে জেল হাজতে প্রেরণ ও অপর আসামী সুজনের তিন দিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

কুষ্টিয়া জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে জমি রেজিষ্ট্রেশনের অভিযোগের পর শহরের বড় বাজারের হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী মহিবুল ইসলামকে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য জেল হাজতে প্রেরণ করেন এবং অপর আসামী শহর যুবলীগের (সদ্য বিলুপ্ত) আহ্বায়ক আশরাফুজ্জামান সুজনকে ৩দিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট রেজাউল করিমের আদালত এই আদেশ দেন।

সকালে মহিবুল ইসলাম ও সুজনকে আদালতে হাজির করা হয়। শুনানি শেষে আদালত জিজ্ঞাসা বাদের জন্য মহিবুলকে জেল হাজতে প্রেরণ ও সুজনকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ডিবি পুলিশের হাতে আটক মহিবুল ইসলাম। সে কুষ্টিয়া শহরের বড় বাজার এলাকার হাজী মোহাম্মদ আলীর ছেলে। এর আগে জমি ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে জড়িত ও জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতির ঘটনায় ৬ জনকে আটক করে পুলিশ।

মামলার বিবরণে জানা যায় শহরের এন এস রোডের বাসিন্দা এম এম এ ওয়াদুদের প্রায় ১০০ কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি বিক্রির চেষ্টা করে প্রতারক চক্র। এই ঘটনায় ভুক্তভোগী বাদি হয়ে ১৮ জনের নাম উল্লেখ সহ ১০/১২ অজ্ঞাত ব্যক্তির বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।