Amar Praner Bangladesh

কুষ্টিয়ায় নির্মাণের ২ সপ্তাহের মধ্যে ধ্বসে পড়লো বিদ্যালয়ের ভবন রক্ষা বাঁধ!

 

 

হাসনাত রাব্বু, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি :

ব্যাপক অনিয়ম ও দায়সারা মনোভাবে যেনতেন প্রকারে এবং নিম্নমানের সামগ্রী এবং মাটির বদলে বালি দিয়ে ভরাট করায় নির্মাণের মাত্র ২ সপ্তাহের মধ্যে ভেঙে পড়েছে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার পরাণখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন রক্ষা বাঁধ। এর ফলে এলজিইডির অর্থায়নে নির্মাণ করা হলেও মিললো না কোন সুফল। অপচয় হলো সরকারি অর্থের।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ১ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা বরাদ্দ পেয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি বাঁধ নির্মাণ সহ আরো ৫ টি উন্নয়ন মূলক কাজ সম্পন্ন করে। কিন্তু দায়িত্বশীলদের অদূরদর্শিতা ও অনিয়মের কারনে অনিবার্য পরিণতিতে পড়ে বাঁধটি। সরেজমিন অনুসন্ধানে এই তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়। বাঁঁধ ভেঙে যাওয়ার দায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ চাপাতে চাইছেন উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তরের উপর এবং উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তরের কর্মকর্তারা দোষ চাপাচ্ছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের উপর।

এমতাবস্থায়, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাজিয়া সুলতানা প্রতিবেদকের কাছে বলেন, উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় থেকে কাজের কোনরুপ তদারকি না করায় নির্মাণ ত্রুটির কারনে বাঁধ ভেঙেছে। এই প্রকল্পের আওতায় বিদ্যালয়ের টয়লেট প্লাস্টার, রঙের কাজ ও টাইলসের কাজ সঠিকভাবে করা সম্ভব হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির তত্বাবধানে এলজিইডির এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে বলে তিনি জানান। এইরুপ কাজে কমিটির কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকায় নির্মাণ ত্রুটি যুক্ত ছিল বলে তিনি স্বীকার করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তরে যোগাযোগ করা হলে দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা এই প্রতিবেদককে বলেন, বিদ্যালয় ভবন রক্ষা বাঁধ ধ্বসে যাওয়ার বিষয়ে অত্র অফিস অবহিত আছেন। তবে বাঁধ নির্মাণের সময় ইঞ্জিনিয়ারদেরকে কোন প্রকার আগাম বার্তা দেয়া হয়নি। নিজেদের ইচ্ছে মত প্রোজেক্ট বাস্তবায়ন করেছেন তারা। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তরের উপর সংশ্লিষ্টরা অন্যায়ভাবে দায় চাপাচ্ছেন বলে উক্ত কর্মকর্তা অভিমত ব্যাক্ত করেন। এদিকে নির্মাণের কয়েকদিনের মাথায় সরকারি অর্থায়নে নির্মিত বাঁধ ধ্বসে পড়ায় ও সরকারি অর্থ জলে যাওয়ায় বিস্ময় ও হতাশা প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।