Amar Praner Bangladesh

কুষ্টিয়া খুলনা মহাসড়কের কুষ্টিয়া-ভেড়ামারা জনদুর্ভোগ চরমে

 

 

হাসনাত রাব্বু, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি :

কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কের কুষ্টিয়া-ভেড়ামারা অংশ দ্রত নির্মাণের তাগিদ দিয়েছেন কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটি। দ্রত কাজ শেষ করে জনদুর্ভোগ লাঘবের দাবি জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার শত নাগরিক নিয়ে গঠিত এ কমিটি।

রোববার (১৭ এপ্রিল) কুষ্টিয়া সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে এই মহাসড়ক নিয়ে এক মতবিনিময়ের পর নাগরিক কমিটির নেতৃবৃন্দ টেলিভিশন চ্যানেল সমুহের সাংবাদিক ব্রিফিংএ এ দাবির যথাযথ তুলে ধরেন।

নাগরিক কমিটির সভাপতি প্রফেসর ডা. এসএম মুস্তানজিদ ও সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. সেলিম তোহার নেতৃত্বে নাগরিক কমিটির নির্বাহী পর্ষদের সদসবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় সভায় এই মহাসড়কের কাজের বর্তমান ধীরগতির কারনে জনজীবনে এক দীর্ঘ সময় ধরে যে সীমাহিন দুর্ভোগ চলছে তা নহীরবিহীন বলে উল্লেখ করা হয়। নাগরিক কমিটির নেতৃবৃন্দ মনে করেন মহাসড়কের পুরোটা একসাথে খোড়াখুড়ি করে পুরো সড়কই যান চলাচরের অনুপযোগী করে রাখা হয়েছে। একই সাথে কোন বিকল্প না রেখে এটা করে রাখাটা অপরিকল্পিত অথবা প্রকল্পে ত্রæটি বলে মনে করেন।

তারা বলেন এই মহাসড়কের কোন অংশই এমন অবস্থায় পড়ে নেই। কেবলমাত্র কুষ্টিয়া অংশেই এই অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।
তারা বলেন বিকল্প না রেখে যান চলাচলের এ বিড়ম্বনা সৃষ্টি আইনের পরিপন্থি। তারা অবিলম্বে বর্তমান সরকারের অপরাপর উন্নয়ন চিত্রের সাথে তুলনা করে অবিলম্বে এ মহাসড়কের কাজ করার জন্য কতৃপক্ষকে অনরোধ করেন।
এসময় াগরিক কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সামসুল ওয়াসে, নির্বাহী পর্ষদের সদস্য আব্দুল খালেক, প্রফেসর শফিকুর রহমান, শাহনেওয়াজ আনসারী মনজু, এসএম কাদেরী শাকিল, বিশ্বজিত সাহা সন্টু ও লেখক ও গবেষক ড. আমানুর আমান উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় কালে কুষ্টিয়া সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী শাকিরুল ইসলাম জানান তারা দ্রততম সময়ের মধ্যে কিভাবে কাজ সম্পন্ন করে জনগনের কষ্ট দুর করা যায় সে লক্ষ্যে কাজ করছেন। তিনি জানান যে স্থান নিয়ে সমস্যাটি তৈরি হয়েছে সেটি সময় নিয়ে করতে হচ্ছে। কারন অনেকটা নতুন করে সড়কের বিভিন্ন সাইড নির্মাণ করতে হচ্ছে।
তিনি নাগরিক কমিটিকে ধন্যবাদ জানান সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে কমিটির এ উদ্যোগের জন্য।