Amar Praner Bangladesh

গণমাধ্যমকর্মী মাসুমা আক্তার জাহানের খোলা চিঠি : বিচার না পেয়ে হতাশা প্রকাশ

 

 

প্রাণের বাংলাদেশ ডেস্কঃ

 

একজন গণমাধ্যমকর্মী জাতির বিবেক, যাকে বলা হয় রাষ্ট্রের ৪র্থ স্তম্ভ। অথচ রাষ্ট্র তার সাথে প্রতিনিয়ত সতিনের মতো ব্যবহার করে। একজন সাধারণ মানুষ যে বিচার পায়, একজন গণমাধ্যমকর্মী বিচার প্রার্থী হলে তার বিষয়ে বিচার নিতে রাষ্ট্রের পুলিশের এতো অনিহা কেন? তারা কি চায়? রাষ্ট্র থেকে ৪র্থ স্তম্ভ নামে জাতির বিবেককে গলাটিপে হত্যা করতে তাহলে রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে গণমাধ্যম বন্ধ করার ঘোষণা না দিয়ে তাদেরকে মানসিক যন্ত্রণা দিয়ে মারার কারণ কি? মাসুমা আক্তার জাহানের সোশ্যাল মিডিয়ায় তার দেওয়া খোলা চিঠি থেকে উঠে এসেছে  বিচার না পাওয়ার আর্তনাত।

সু-প্রিয়,

গণমাধ্যম ও সাংস্কৃতিককর্মী বন্ধুরা আমি মাসুমা আক্তার জাহান, মিরপুরের মেয়ে, এই মাটিতেই আমার জন্ম।
লালমাটিয়া স্কুল এন্ড কলেজের প্রাক্তন ছাত্রী আমি, এই শহরেই আমি বড় হয়েছি, তবে কখনো কোনোদিন এরকম তিক্ত অভিজ্ঞতার সম্মূখীন হতে হবে কল্পণাও করিনি।

গত ১১ই আগস্ট প্রকাশ‍্য দিবালোকে আমার সাথে যে ন‍্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটলো সেটা আমি কোনো অবস্থাতেই মেনে নিতে পারছি না।

আপনাদের সকলের দোয়া এবং ভালোবাসা থাকলে অবশ্যই আমি বিচার পাবো। থানায় মামলা গ্রহণ না করলে প্রয়োজনে কোর্টে মামলা করবো, সেই সাথে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আপনাদের সকলের কাছে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করবো।

এছাড়াও মিরপুর জোনের ডিসি/এডিসি মহোদয়ের অবগতির জন্য স্বারকলিপি প্রদান করবো। আইনজীবীর মাধ্যমে কোর্টে মামলা এবং থানায় মামলা গ্রহণ না করার যুক্তিযুক্ত কারণ দর্শানোর লিগ্যাল নোটিশ পাঠানোর ব‍্যবস্থা করবো।

আমি সরল মনে, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় মামলা করতে চেয়েছিলাম। প্রকাশ‍্যে হত্যার চেষ্টা এবং ছিনতাইয়ের ঘটনার জন‍্য কিসের এতো তদন্ত?

কেনো তদন্তের নামে দফায় দফায় হয়রানির স্বীকার হতে হচ্ছে? তাহলে কি তদন্তের নামে আসামীদের সাথে সমঝোতার চেষ্টা চলছে? নাকি কোনোকিছু আড়াল করার অশুভ উদ্দেশ্যে সময় ক্ষেপন করা হচ্ছে?

আমি একজন ভূক্তভোগী আমার কষ্ট নিয়ে কিছু দালাল শ্রেণীর লোক ভিন্ন ভিন্ন মতামত পোষণ করছেন, বিষয়টি সত্যিই দুঃখজনক।

আজ আমার জায়গায় আপনার কোনো বোন যদি এরকম পরিস্থিতির স্বীকার হতো তখন কি চুপ করে বসে থাকতে পারতেন?

আজ আমি আক্রান্ত হয়েছি আগামীতে অন্য কারো মা-বোন হয়তো হবে, সেক্ষেত্রে প্রশাসনিক সিস্টেমের পরিবর্তন এখন সময়ের দাবি। আগামীতে আমরা আর কোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ঘটতে দিতে পারিনা।

 

ধন্যবাদন্তে-

মাসুমা আক্তার জাহান
গণমাধ্যম ও সাংস্কৃতিকর্মী,
মিরপুর, ঢাকা।
13.08.2022