Amar Praner Bangladesh

গরুর ব্যাপারীর ছদ্মবেশে ঘাতক চালককে ধরলো পুলিশ

 

 

রবিউল আলম রাজুঃ

 

রাজধানীর উত্তরা আব্দুল্লাহপরে গত ২৭ শে আগষ্ট লরিচাপায় কাজী মাসুদ (৩৮) নামের এক ট্রাফিক পুলিশ সদস্য ও বাস কাউন্টার কর্মী জাহাঙ্গীর আলম (২৭) নিহতের ঘটনায় পলাতক ঘাতক চালককে ধরতে মাঠে নামে উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ।

অবশেষে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় পুলিশ জানতে পারে ঘাতক চালকের অবস্থান নোয়াখালীতে। আসামী ধরতে নেয়া হয় গরুর ব্যাপারীর ছদ্মবেশ। রবিবার দিবাগত রাতে কোম্পানীগঞ্জের প্রত্যন্ত চরাঞ্চল কাঁকড়ার চর এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয় ঘাতক চালককে। গ্রেফতারকৃত হলেন, নোয়াখালী জেলার আব্দুল মন্নানের ছেলে আব্দুল আল আজাদ (২৩)।

সোমবার সকালে ঘাতক চালককে নিয়ে আসা হয় উত্তরা পশ্চিম থানায়।

অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া উত্তরা পশ্চিম থানার এস আই নেয়াজ মোহাম্মদ শরীফ প্রতিবেদককে বলেন, এটা খুব চ্যালেঞ্জিং অভিযান ছিলো আমাদের। ঘাতক চালক দূর্ঘটনাটি ঘটিয়েই পালিয়ে যায়, পরবর্তীতে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় অবজারভেশন করে আমরা তার অবস্থান বের করি যে সে বর্তমানে নোয়াখালীতে অবস্থান করছে। পরে সেখানে তার গ্রামের বাড়িতে গিয়েও তাকে ধরা সম্ভব হয় না। এক সময় ছদ্মবেশ ধারণ করি আমরা। গরুর ব্যাপারী সেজে সুত্র ধরে এগোতে থাকি। এক পর্যায়ে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের কাঁকড়ার চরে ঘাতক চালককের শশুরবাড়িতে সোমবার ভোর রাতে অভিযান চালালে গ্রেফতার হয় লরি চালক আব্দুল আল আজাদ। আজ সকালে তাকে উত্তরা পশ্চিম থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

উত্তরা জোনের উপপুলিশ কমিশনার মোর্শেদ আলম প্রতিবেদককে ঘাতক চালককে গ্রেফতারের কথা নিশ্চিত করেছেন।

গত ২৭ আগস্ট দিবাগত রাত ৩টা ২০ মিনিটের দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের উত্তরার আবদুল্লাহপুরের টঙ্গী ব্রিজের কাছে লরিচাপায় ট্রাফিক পুলিশ সদস্য ও কাউন্টার কর্মী নিহত হয়। এ ঘটনায় উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি মামলা দায়ের করে ভুক্তভোগী পরিবার। যাহার মামলা নং ৬৪।