Amar Praner Bangladesh

ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন : কে হচ্ছেন সভাপতি-সম্পাদক

 

 

আ. রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি :

সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে দীর্ঘ বিশ বছর পর আজ বহুল আলোচিত ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। এ সম্মেলনের মাধ্যমে কে পাচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব তা নির্ধারিত হবে। সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ঘাটাইল পৌরসভাসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ব্যানার ফেস্টুন ও তোরণ শোভা পাচ্ছে। নেতা-কর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রস্তুতিসভা করে সম্মেলনে ব্যাপক লোক সমাগম ঘটানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। শহীদুল ইসলাম লেবু ঘাটাইল উপজেলার সভাপতি হচ্ছেন এমনটাই ধারণা করছেন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে বেশ কয়েকজন প্রার্থীতা ঘোষণা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ব্যানার ফেস্টুন টাঙ্গিয়ে প্রচারণা করছে। তার গতকাল রবিবার নিজের অনুসারিদের বিভিন্ন বিষয়ে দিক-নির্দেশনা দিয়ে সময় কাটিয়েছেন। দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গেও থেমে থেমে যোগাযোগ করেছেন।

জানা যায় দীর্ঘ ২০ বছর পর অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে সভাপতি প্রার্থী শহিদুল ইসলাম লেবু যিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হিসেবে দীর্ঘদিন নেতৃত্বে রয়েছেন। ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে নেতা-কর্মীরা তার প্রতি আস্থাশীল। সুসংগঠিত ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের ঐতিহ্য ধরে রাখতে শহিদুল ইসলাম লেবু সভাপতি নির্বাচিত হোক এমন প্রত্যাশা তাদের।

সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে বেশ কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হচ্ছেনÑ জামুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সাবেক ছাত্রনেতা শহিদুল ইসলাম খান হেস্টিংস সংগ্রামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম মিঞা ও সাগরদিঘি ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত শিকদার। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীদের পক্ষ-বিপক্ষ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনায় রবিবার দিনটি পার করেছেন ঘাটাইল বাসী। আলোচনায় গুরুত্ব পেয়েছেÑ সাংগঠনিক প্রজ্ঞা ও কর্মী-বান্ধবের বিষয়টি। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। কে হচ্ছেন- ঘাটাইলের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। কে পদ না পেলেও বরণ করে নিবেন দলীয় সিদ্ধান্ত।

প্রসঙ্গত দীর্ঘদিন যাবত ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগ দু’ভাগে বিভক্ত। মূল সংগঠনের দায়িত্বে শহিদুল ইসলাম লেবু থাকলেও সাবেক এমপি আমানুর রহমান খান রানা গ্রুপ হিসেবে পরিচিত আওয়ামী লীগের একটি অংশ রয়েছে। তাদের সাথে সমন্বয় করে কমিটি গঠন হবে এমন অভিমত রানা সমর্থকদের। তাদের মতে একটি অংশকে বাদ দিয়ে কমিটি গঠন হলে ঘাটাইলের আওয়ামী লীগ দুর্বল হয়ে পড়বে। কারণ ঘাটাইলের রাজনীতিতে রানা সমর্থকরা তাদের ফ্যান্টর মনে করে।

শহিদুল ইসলাম লেবু সমর্থকরাও ঘাটাইলে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগ চান। তবে তাদের চিন্তা একটু ভিন্নভাবে। লেবু অনুসারীদের অন্যতম নেতা আকরাম হোসেন খান বলেনÑ যারা উর্ধ্বতন সংগঠনের সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা করে, যারা নিজের স্বার্থে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে না তাদের সাথেই আমাদের ঐক্য হতে কোন বাঁধা নেই।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, ২০০২ সালে সম্মেলনের মাধ্যমে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি গঠিত হয়। কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ২০০৫ সালে গঠন করা হয় আহ্বায়ক কমিটি। তার পর থেকেই কয়েকবার আহ্বায়ক কমিটি পুনঃঘটন মেয়াদ বৃদ্ধি করা হলেও সম্মেলনের মাধ্যমে পূনাঙ্গ কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি।

সম্মেলনকে ঘিরে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে সম্মেলন স্থল উপজেলা সদরের ঘাটাইল সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ প্রস্তুতের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। অতিথিদের বরণ করতে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ মহাসড়কে নির্মাণ করা হয়েছে শতাধিক তোরণ, বিলবোর্ড, ব্যানার ও পোস্টারে ছেয়ে গেছে উপজেলা সদরের অলিগলি।
সম্মেলনে ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম লেবুর সভাপতিত্বে ঘাটাইল সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি থাকবেন বাংলাদেশ আ’লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। সম্মেলন উদ্বোধন করবেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান খান ফারুক। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়য়া, আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানব কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন নাহার চাঁপা, আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি, স্থানীয় এমপি আতাউর রহমান খানসহ কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতাবৃন্দের সম্মেলনে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জামুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম খান হেস্টিংস বলেন, দীর্ঘদিন পর সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওযার সংবাদে দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। দলের সকল পর্যায়ের নেতাদের অংশগ্রহণে সম্মেলন সফল হবে বলে আশা করি।

আনেহলা ইউপি চেয়ারম্যান তালুকদার শাহজাহান বলেন, সম্মেলনে দলের ভিতরের বিভাজন দুর করে কেন্দ্রিয়, জেলা, উপজেলার নেতৃবৃন্দ ও তৃনমূলের কর্মীরা সঠিক নেতৃত্ব বেছে নিবে বলে বিশ্বাস করি।

উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান আহবায়ক ও উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম লেবু বলেন, কেন্দ্রিয় কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের পরামর্শে উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনের সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এবারের সম্মেলনের তৃণমূল নেতাকর্মীরা মূল্যায়িত করে কমিটি গঠন হবে বলে আশা করি।