Amar Praner Bangladesh

চট্টগ্রামের মনসুরের উলঙ্গ ভিডিও ভাইরালে তাকে জিজ্ঞাসাবাদে সাংবাদিককে হুমকি

 

রবিউল আলম রাজু :

 

চট্টগ্রামের মনসুর ব্যবসা করে রাজধানীর উত্তরায়। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিনি ট্রাভেলসের ব্যবসা করেন এবং বিদেশে আদম পাচার করে। সম্প্রতি তার একটি উলঙ্গ ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। সেখানে দেখা যায়, সে সম্পূর্ণ ইচ্ছাকৃতভাবে তার লজ্জা স্থানে কনডম লাগিয়ে নাচানাচি করছে। পাশে একটি মেয়ের কন্ঠ শুনা যাচ্ছে। অবস্থা দৃষ্টে বিষয়টি স্পষ্ট সম্পূর্ণ সুস্থ মস্তিস্কে ভিডিওটি তার সম্মতিতেই ধারণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশের সম্পাদককে হুমকির সুরে কথা বলে জানায়, এই ছবি ভাইরাল করে দেন। আপনার নাম কি ? আপনার পত্রিকার নাম কি বলে মুঠোফোন কেটে দেয়।

পরবর্তীতে সংবাদের প্রতিবেদক রাজুর মুঠোফোনে মনসুর ফোন দিয়ে বিশাল ভাব দেখায়। রাজু সুন্দরভাবে তাকে জিজ্ঞাসা করে আপনি সম্পাদককে হুমকি দিলেন কেন, সম্পাদকের সাথে আপনার কি হয়েছে? সে জানায় সম্পাদকের সাথে আমার কিছু হয়নি। সম্পাদককে বলবেন তার মতো তাকে থাকতে। প্রতিবেদক যখন মনসুরকে আরো জিজ্ঞাসা করেন আপনি কি করেন, তখন সে জানায় আমি ইয়াবা, মদ ও গাঁজার ব্যবসা করি। আমি এখন রাজলক্ষী বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিচ্ছি। আমি এখন ব্যস্ত। আপনার সাথে কথা বলার সময় নেই। এই বলে ফোন কেটে দেয়।

বর্তমান সরকার সোশ্যাল মিডিয়ার উপরে কন্ট্রোল করার লক্ষ্যে এবং সোশ্যাল মিডিয়াকে একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে তৈরি করার নিমিত্তে কাজ করে যাচ্ছেন। বেশকিছু আইন ইতিমধ্যে প্রণয়ন করা হয়েছে। যেখানে কেউ পর্ণ গ্রাফি ছবি কিংবা আপত্তিকর কোন ছবি কিংবা ভিডিও ফেসবুক কিংবা কারো ম্যাসেঞ্জার অথবা হোয়াটসআপে দিয়ে নোংরামি ছড়াতে পারবেনা। ইতিপূর্বে এসব নোংরামি বন্ধে বেশ কিছু ফেসবুক বন্ধ করা হয়েছে এবং অনেককেই আইনের আওতায় আনা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ট্রাভেলস ব্যবসায়ী মনসুর ব্যক্তিগত জীবনে উচ্চ বিলাশী সবসময় মদ ও অন্যান্য অপরাধের সাথে জড়িত থেকে নিজের মদ্য পান করেন এবং সকলের সাথে দূর্ব্যবহার করে বলে জানা যায়।