Amar Praner Bangladesh

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন তাদের হোল্ডিং ট্যাক্স একলাফে ৫৫০% হতে ৮০০% পর্যন্ত বাড়িয়েছে

 

 

চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ

 

আগে বর্গফুটের ভিত্তিতে হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারিত হলেও এখন সেটা নির্ধারিত হচ্ছে বাড়িভাড়ার উপরে। নিজে বসবাস করলে ৩০০+ % আর ভাড়া দিলে ৫০০+ %।

অথচ এই বাড়িভাড়ার উপর ইতিমধ্যেই বাড়ি আর ফ্ল্যাট মালিকরা ইনকাম ট্যাক্স দিচ্ছেন। এখন আরোপ করা হোল্ডিং ট্যাক্স এর কারণে একই সম্পদের জন্য দুইবার ট্যাক্স দিতে বাধ্য করা হচ্ছে নগরবাসীকে। যা সর্ব স্বীকৃত করআইনের পরিপন্থী।

আগে যার বাৎসরিক ট্যাক্স আসত ২০ হাজার টাকা, তাদের এই বছর ট্যাক্স চাওয়া হচ্ছে দেড় লাখের উপর। যে আইন ১৯৮৬ সালে এরশাদ আমলে অধ্যাদেশ আকারে প্রণীত হলেও ৩১ বছর ধরে এর প্রয়োগ হয়নি, সেটা নিয়েই ২০১৭ সালে নগরবাসীর উপর চাপিয়ে দিতে চেয়েছিলেন তৎকালীন মেয়র আজম নাসির। প্রতিবাদ আর হাইকোর্ট এ রিট করায় তখন সেটা স্থগিত হয়ে যায়।

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে, কোন বাড়তি ট্যাক্সের বোঝা চাপানো হবে না, এরকম প্রতিশ্রুতি দিয়েও এখন কথা রাখছেন না বর্তমান মেয়র। জিজ্ঞেস করা হলে টিভি ইন্টারভিউতে বলেছেন, উনি ট্যাক্স বাড়াচ্ছেন না শুধু আওতা বাড়াচ্ছেন যা আসলে অসত্য।

এখন আপীল করার জন্য বাড়তি ফি আর স্পিড মানি নিয়ে ট্যাক্স ৫০০ শতাংশ হতে কমিয়ে ২০০-২৫০ % করা হচ্ছে। এতে লাভবান হচ্ছেন শুধু নির্দিষ্ট কিছু ব্যক্তি। একটা সিটির হোল্ডিং ট্যাক্স ১০ টাকা হতে বাড়িয়ে ১২-১৫ টাকা করা যেতে পারত৷ কিন্তু চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন একলাফে করেছে ৫০-৮০ টাকা।

ঢাকা সিটি উত্তর আর দক্ষিণের হোল্ডিং ট্যাক্স ১২%, সেখানে চট্টগ্রামের ১৭%। এই ১৭% এর মধ্যে ৭% হল আবর্জনা অপসারণ এর ব্যয়৷ অথচ, শহরের ফ্ল্যাটগুলো হতে আবর্জনা সরাতে আলাদা ফি নেয়া হয় মাসিক ৭০-৮০ টাকা করে। ৩% হল বিদ্যুতায়ন, অথচ অনেকগুলো রাস্তার লাইটই অকেজো অবস্থায় পড়ে আছে।

কদিন আগে গ্যাসের মূল্য বেড়েছে। জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে, কাঁচাবাজার এর মূল্য বেড়েছে। মানুষের জন্য দুর্নীতি মুক্ত আর সহনীয় জীবনযাপন করা দিন দিন অসম্ভব হয়ে পড়ছে৷
তার উপর যুক্ত হল এই ৫০০+ % হোল্ডিং ট্যাক্স।

এখন যদি এই ট্যাক্সের চাপে বাড়িওয়ালারা ভাড়া বাড়ানো শুরু করেন, তখন চাপে পড়বে সব ভাড়াটিয়ারা। সব বিল্ডিংয়েরই পরিবেশ হয়ে উঠবে অসহনীয়।

যারা আগেও ট্যাক্স দিত না, তাদের সমস্যা নাই। সমস্যায় পড়েছে, যারা নিয়মিত ট্যাক্স দেয় তারা। মরার উপর খাঁড়ার ঘা …