জামালপুরে ধর্ষণের শিকার ছাগল : ৩ ধর্ষকের যৌনক্ষুধায় ছাগলটির মৃত্যু

 

 

মোমিনুল ইসলাম :

 

আজ ৫ অক্টোবর ২০২০ ইং জামালপুরের বকশীগঞ্জে ধর্ষণের শিকার হয়েছে চতুষ্পদ প্রাণী একটি ছাগল। ধর্ষকদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি গীর্জার ছাগলটি। ৩ ধর্ষকের যৌন ক্ষুধায় শেষ পর্যন্ত মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে নিস্পাপ প্রাণীটি ।

ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্থানীয়রা চালাচ্ছে তদবির । স্থানীয়রা জানান, জামালপুরের লাউচাপড়া এলাকার দিঘলকোনায় অবস্থিত খ্রীষ্টান মিশনারীর (গীর্জা) একটি ছাগল ঘাস খেতে পাহাড়ে যায় । এ সময় লাউচাপড়া এলাকার আব্দুস সামাদের ছেলে ইমরান (১৮) একই এলাকায় নওশেদ আলীর ছেলে উকন (১৬) ও আসমত আলীর ছেলে ইয়াসিন সবাই মিলে ছাগলটিকে ধরে বলৎকার করে।

এ সময় ছাগলটি যেন কোন ধরনের শব্দ করতে না পেরে চোখ, নাক ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধ ফেলে। এক পর্যায়ে ছাগলটি শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মারা যায়। এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর এলাকায় মানুষের মাঝে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ধানুয়া কামালপুরের ইউপি সদস্য নুর জাহান বেগম অঞ্জলী, গীর্জার পুরোহিত শেখর চার্লস পেরেরাসহ ধর্ষকরা পরিবার মিলে ছাগলের দাম ১০ হাজার টাকা নির্ধারন করে জরিমানা করা হয়েছে। পরে ছাগলটি পুতে ফেলা হয়।

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য নুর জাহান বেগম অঞ্জলী সাংবাদিকদের জানান, ঘটনাটি অত্যন্ত লজ্জা জনক। এলাকার ছেলেরা ভুল করে করে ফেলেছে, জনপ্রতিনিধি হিসাবে তিনি এটি মিমাংসা করেছেন।

এ বিষয়ে গীর্জার পুরোহিত শেখর চার্লস পেরেরা সাংবাদিকদের সাথে কোন কথা বলতে চাননি। বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম সম্রাটের সাথে দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশের কথা হলে তিনি জানান, বিষয়টি আমিও শুনেছি খুবই লজ্জাকর বিষয়। ঘটনার সত্যতা আছে। আমরা যোগাযোগ করেছি আগামীকাল বাদী মামলা করবে বলে জানিয়েছে। অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।