Amar Praner Bangladesh

টঙ্গীতে সিরাজউদ্দিন বিদ্যানিকেতনে স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপিত

 

 

 

বশির আলম, টঙ্গী :

 

বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে গত ২৬ মার্চ, ২০২২ সিরাজুদ্দিন বিদ্যানিকেতনে ৫১তম স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

যথাযোগ্য মর্যাদায় অনুষ্ঠিত স্বাধীনতা দিবসের মূল পর্ব ছিল আলোচনা সভা। কলেজের অধ্যক্ষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান।

প্রধান অতিথি বলেন, স্বাধীনতা আমাদের জাতীয় জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন। দীর্ঘ নয় মাস স্বাধীনতা যুদ্ধ শেষে আমরা বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলাম। এ জন্য ৩০ লাখ মানুষকে শহীদ হতে হয়েছে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সূচনা ২৬-শে মার্চ হলেও মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপট তৈরি হয় ’৫২-এর ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। তারপর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ’৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন, ’৬৬-এর ৬ দফা আন্দোলন, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ‘সর্বদলীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদ’ কর্তৃক ১১ দফা আন্দোলন, ৭০-এর সাধারণ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ১৯৭১ সালে আমরা মুক্তিযুদ্ধের দিকে এগিয়ে যাই। অনেক ত্যাগের মধ্য দিয়ে আমরা স্বাধীনতাযুদ্ধে বিজয় অর্জন করেছি।

স্বাধীনতাযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর আমাদের স্বপ্ন ছিল আমরা সুখী, সমৃদ্ধিশালী একটি বাংলাদেশ গড়ব। স্বাধীনতাযুদ্ধে যারা শহীদ হয়েছেন, জাতি তাঁদের যুগ যুগ ধরে মনে রাখবে। জাতির এ সূর্যসন্তানদের স্বপ্ন ছিল বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে।

স্বাধীনতা আমাদের জন্য একটি স্বর্ণদুয়ার খুলে দিয়েছিল। যে দুয়ার দিয়ে প্রবেশ করে আমরা আমাদের যুগসঞ্চিত জঞ্জাল দূর করতে পেরেছিলাম। তখন আমাদের স্বপ্ন ছিল, আমরা সব ধরনের অন্যায়, অত্যাচার, নির্যাতন দূর করে একটি সুস্থ, শোষণমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে পারব। সেই সদিচ্ছা নিয়ে দেশ গঠনে আমাদের সবাইকে কাজ করতে হবে।

সভাপতির সমাপনী বক্তব্যে কলেজের সম্মানিত অধ্যক্ষ ওয়াদুদুর রহমান বলেন। আমাদের ইতিহাসে স্বাধীনতাসংগ্রাম ও স্বাধীনতা দিবসের কথা স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে, অনন্তকাল আমাদের অনুপ্রেরণার উত্স হয়ে থাকবে।

স্বাধীনতার শহীদদের স্বরণে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এ উপলক্ষে স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর, নাট্যানুষ্ঠান, সংগীতানুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়।