বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
টঙ্গীতে জমি আত্মসাৎ এর জন্য নিজের মাথায় আঘাত করে মিথ্যা মামলা সাজালেন ছোট ভাইসহ তিনজনের বিরুদ্ধে বাঞ্ছারামপুরকে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষনা করার লক্ষে ইউএনও এর প্রেস ব্রিফিং মিরপুরে ছিনতাইকারী চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার : দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার চালের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা: খাদ্যমন্ত্রী চেম্বার আদালতেও রাষ্ট্রপতি নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে রিট খারিজ ইলিয়াস-বাবুলের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদনের নতুন দিন ধার্য টাঙ্গাইল-৩ আসন আওয়ামীলীগের গৃহবিবাদের সুযোগ নিতে চায় বিএনপি হজ পালনে থাকছে না বয়সসীমা, শর্ত তুলে নিলো সৌদি আরব কুষ্টিয়ায় পরিবারের সবাইকে রুমে আটকে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুট কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোন কর্তৃক শরণখোলায় বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান

টাঙ্গাইলের পাহাড়ি অঞ্চলের কৃষকরা কলা চাষে ঝুঁকছে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ১৭ Time View

 

 

আঃ রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল :

 

টাঙ্গাইলের পাহাড়ি অঞ্চলের লালমাটি কলা চাষের জন্য উর্বর হওয়ায় কৃষকরা এককালীন ফলন হলেও অন্য ফসলের তুলনায় কম খরচে বেশি লাভের কারণে কলা চাষে ঝুঁকছেন। জানাগেছে, জেলার লালমাটি অধ্যুষিত উপজেলা মধুপর, ঘাটাইল ও সখীপুরের পাহাড়ি মাটি কলা চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় কলা চাষের প্রতি স্থানীয় কৃষকদের মাঝে আগ্রহ বাড়ছে। ইতোমধ্যে
অনেক কৃষক কলা চাষে অর্থনৈতিকভাবে সফলও হয়েছেন। বেশ কিছুদিন পানামা পোকার আক্রমণে কলা চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও বর্তমানে পোকার আক্রমণ অনেকাংশে কমে গেছে। ধান, পাট সহ প্রচলিত অন্যান্য ফসলের তুলনায় কলা চাষে শ্রম খুবই কম ব্যয় করতে হয়।

বিক্রির ক্ষেত্রেও ঝামেলা নেই। কলার বাজার দরে সহজে ধস নামেনা। তাছাড়া পাহাগি এলাকা অপেক্ষাকৃত উঁচু হওয়ায় সারা বছরেই কলার চাষ করা যায়। জেলার মধুপুর, ঘাটাইল ও সখীপুর এ কিন উপজেলার উৎপাদিত কলা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে প্রায় ৭০-৮০ ভাগই চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন জেলা ছাড়াও ঢাকা, ময়মনসিংহ, জামালপুর, ফুলবাড়িয়া, সিলেট, ভৈরবসহ দেশের অন্য জেলাগুলোতে যাচ্ছে। স্থানীয় কলার পাইকারী বাজার মধুপুরের জলছত্র, গারোবাজার এবং সখীপুর উপজেলার কুতুবপুর বাজার কলার জন্য বিখ্যাত। এছাড়া আরও বেশ কয়েক জায়গায় কলা বিক্রি করা হলেও তা সীমিত।

এ তিনটি হাট থেকে প্রতিদিন ছোট-বড় মিলে ২০-৩০ ট্রাক ভর্তি কলা যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন এলাকায়। মধুপুরের জলছত্র সপ্তাহে দুই দিনব্যাপী কলার হাট হয়। এই দুই হাটেই কোটি টাকার উপরে কলা বিক্রি হয়। একই চিত্র সখীপুরের কুতুবপুর এবং মধুপুরের গারোবাজারে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসব বাজার বা হাটে পাইকাররা কলা কিনতে আসেন। টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ অঞ্চলে বারিকলা-১ ও বারিকলা- ২ (আনাজিকলা), অমৃতসাগর, মন্দিরা, মন্দিরা সাগর, সবরি, চম্পা, চিনিচাম্পা, কবরি, মেহেরসাগর, বীচিকলা ইত্যাদি জাতের কলা চাষ হয়ে থাকে।

প্রতি বিঘা জমিতে ৩৫০ থেকে ৩৮০টি কলাগাছ রোপণ করা হয়। একটি কলা গাছে রোপণ থেকে বাজার জাত পর্যন্ত ১৫০ থেকে ২০০ টাকা খরচ হয়। প্রতিটি কলার ছড়ি ৩৫০ থেকে ৪৫০ টাকায় বিক্রি করা যায়। এ হিসেবে প্রতি বিঘায় প্রায় ৬০ হাজার টাকা কৃষকরা লাভের মুখ দেখেন।

সূত্র জানায়, কলায় প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, লৌহ ও ভিটামিন সি রয়েছে। পাকা কলা মানব দেহে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে এবং কলার থোড় বা মোচা ডায়াবেটিস, আমাশয়, আলসার নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়। চলতি মৌসুমে জেলায় চার হাজার ৬৬৭ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের কলা আবাদ করা হয়েছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি কলা চাষ হচ্ছে মধুপুরে। মহিষমারা, শোলাকুড়ী, বেরীবাইদ, অরণখোলা, কুড়াগাছা, কাকরাইদ, ভবানীটেকী, গরমবাজার, কাউচি বাজারসহ মধুপুরের বিভিন্ন গ্রামেই দুই হাজার ৩৫৫ হেক্টর জমিতে কলার চাষ হচ্ছে এ বছর ঘাটাইল উপজেলায় ৯৫০ হেক্টর জমিতে কলা চাষ হয়েছে। সন্ধানপুর, সংগ্রামপুর, রসুলপুর, লক্ষিন্দর, ধলাপাড়া ও সাগরদিঘী ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি কলার আবাদ করা হয়েছে।

এসব এলাকার কলার চাহিদা দিনদিন বাগছে। এর প্রভাব কলা চাষিদের মাঝেও পড়েছে। এ বছর উৎপাদিত কলা আগের বছরের চেয়ে কৃষকরা বেশি দামে বিক্রি করতে পারছেন। তবে এবারও কোন কোন এলাকায় পানামা রোগের প্রকোপ লক্ষ করা গেছে। মধুপুরের মহিষমারা গ্রামের কৃষক ছানোয়ার হোসেন জানান, নিজের পৈতৃক জমি ও অন্যের জমি ভাড়া নিয়ে তিনি বিভিন্ন ফলের চাষ করছেন। এবার পাঁচ বিঘা জমিতে ১৭০০টি কলার চারা রোপণ করেছেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ফলন এবং লাভও দুটোই ভাল হবে। এখন শীতকাল থাকায় কলার দাম একটু কম যাচ্ছে।

গরম উঠলেই কলার বাজার অনেক বেড়ে যাবে। তিনি জানান, মধুপুর গড়াঞ্চলে আনারসের সাথী ফসল হিসেবে প্রচুর পরিমাণে কলা চাষ হয়ে থাকে। কলা চাষের সাথে কচু, আদা, হলুদ ও আনারস সহজেই চাষ করা যায়। এ অঞ্চলের অধিকাংশ কৃষক কলার সাথে কচু ও আদা-হলুদ চাষ করে থাকেন। এতে এক জমিতে দুই-তিন ফসল আবাদ করা যায়। তরুণ কলা চাষী আব্দুস সাত্তার জানান, পাহাড়ি অঞ্চল কলা চাষের জন্য খুবই উপযোগী হওয়ায় কলা চাষে অন্য ফসলের চেয়ে বেশি লাভবান হওয়া যায়। তাই বেকার যুবকদের চাকরির পিছনে না ছুটে কলা চাষে মনোনিবেশ করার পরামর্শ দেন তিনি। কৃষক সিরাজুল ইসলাম জানান, তিনি এবার প্রথম সবরি কলার চাষ করেছেন। এখন পর্যন্ত কলা গাছগুলো সুস্থ-সবল থাকায় ভালো ফলনের আশা করছেন। কৃষি কর্মকর্তাদের সহযোগিতা পেলে আগামিতে আরও বেশি জমিতে কলার চাষ করার আশা করেন তিনি। মধুপুরে কাকরাইদ গ্রামের কলা চাষী মাসুদ রানা জানান, তিনি আনারসের পাশাপাশি কলা ও পেঁপে চাষ করে থাকেন। করোনার মহামারির সময় কলাসহ বিভিন্ন ফসলে ব্যাপক লোকসান হয়েছিল। এ বছর কলার বাম্পার ফলন হবে আশা করছেন।

মধুপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আল মামুন রাসেল জানান, এ বছর মধুপুর উপজেলায় কলা চাষ কিছুটা কম হয়েছে। কারণ একই জমিতে বারবার কলা চাষ করলে মাটির উর্বরতা কমে যায়। সেই সাথে পানামা পোকার আক্রমণে কলা চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তারপরও এবার মধুপুর উপজেলায় দুই হাজার ৩৫৫ হেক্টর জমিতে কলার চাষ হয়েছে। এ বছর লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ভালো ফলনের আশা করা হচ্ছে। টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আহসানুল বাসার জানান, চলতি মৌসুমে টাঙ্গাইল জেলায় চার হাজার ৬৬৭ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের কলা আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কলা চাষ হচ্ছে মধুপুর উপজেলায়। এছাড়া ঘাটাইল ও সখীপুর উপজেলায়ও কলা আবাদ করা হয়েছে। তিনি জানান, একফসল হলেও অন্য ফসলের চেয়ে তুলনামূলকভাবে বেশি লাভবান হওয়ায় এ অঞ্চলের বিশেষ করে পাহাড়ি অঞ্চলের কৃষকরা কলা চাষে ঝুঁকছেন।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

এই সাইটের কোন লেখা কপি পেস্ট করা আইনত দন্ডনীয়