Amar Praner Bangladesh

টাঙ্গাইলে দুর্ঘটনায় সেনাবাহিনীর কর্পোরালসহ চারজন নিহত

 

 

 

আ: রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি :

 

বঙ্গবন্ধু সেতু-ঢাকা মহাসড়ক ও বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব-জামালপুর রেল সড়কে আলাদা দুর্ঘটনায় সেনাবাহিনীর একজন কর্পোরাল সহ চার জন নিহত হয়েছেন।

জানাগেছে, বঙ্গবন্ধু সেতু-ঢাকা মহাসড়কে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার পাছবিক্রমহাটি নামক স্থানে শনিবার (২৬ মার্চ) দিনগত গভীর রাতে ঢাকাগামী একটি মোটরসাইকেলকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই আইয়ুব আলী(৩৬) নিহত হন। তিনি নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার ধাপনপাড়া গ্রামের শামসুল ইসলামের ছেলে এবং সেনাবাহিনীর কর্পোরাল ছিলেন। নিহত আইয়ুব আলী ঢাকার যাত্রাবাড়ী এলাকায় কর্মরত ছিলেন। ছুটি শেষে তিনি কর্মস্থলে ফিরছিলেন।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ আতাউর রহমান জানান, শনিবার রাতে মোটরসাইকেল যোগে আইয়ুব আলী নাটোর থেকে ঢাকার যাত্রাবাড়ী কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। পথে মহাসড়কের পাছবিক্রমহাটি পৌঁছলে অজ্ঞাত একটি গাড়ি মোটরসাইকেলটিকে চাপা দিয়ে চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে পুলিশ খবর পেয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

এদিকে একই মহাসড়কে কালিহাতী উপজেলার সল্লা নামক স্থানে শনিবার(২৬ মার্চ) দিনগত রাতে লোটন পরিহনের একটি বাসের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী জুবায়ের হোসেন(২৮) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত মোটরসাইকেল চালক শাহনেওয়াজকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহত জুবায়ের বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার হাবিবপুর গ্রামের আমজাদ আলীর ছেলে। আহত শাহনেওয়াজ গাইবান্ধা জেলার সেকান্দর আলীর ছেলে। দুজনেই ঢাকার একটি পোশাক কারখানায় চাকুরি করতেন।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আব্দুল মজিদ জানান, ছুটি শেষে শনিবার রাতে জুবায়ের ও শাহনেওয়াজ মোটরসাইকেল যোগে ঢাকায় কর্মস্থলে ফিরছিলেন। তারা মহাসড়কে সল্লা এলাকায় পৌঁছলে পেছন থেকে লোটন পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস তাদের চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই জুবায়ের মৃত্যুবরণ করেন। তিনি জানান, গুরুতর আহত শাহনেওয়াজকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় বাসটিকে আটক করতে পারলেও চালক পালিয়ে গেছে।

অপরদিকে, বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব-জামালপুর রেললাইনে ভূঞাপুর উপজেলার অলোয়া ইউনিয়নের আমুলা গ্রামে অরক্ষিত রেলক্রসিং পাড় হওয়ার সময় ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি চালিত অটোরিকশা ছিটকে খাদে পড়ে চালক জাহিদুল ইসলাম (২৮) ও যাত্রী বাদশা মিয়া(৪৫) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় অপর এক যাত্রী আহত হয়েছেন।

নিহত জাহিদুল ইসলাম ভূঞাপুর উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের খানুরবাড়ী গ্রামের আবজাল হোসেনের ছেলে ও বাদশা মিয়া ঘাটাইল উপজেলার আনেহলা ইউনিয়নের ডাকনা পটল গ্রামের সামছু মিয়ার ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, জামালপুর থেকে ছেড়ে আসা একটি লোকাল ট্রেন বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব রেলস্টেশনে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা আমুলা রেলক্রসিং পাড় হওয়ার সময় ট্রেনের ধাক্কায় খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে সিএনজি চালক জাহিদুল ইসলাম নিহত ও অপর দুই যাত্রী আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আল মামুন জানান, ট্রেনের ধাক্কায় আহত হওয়া দুই ব্যক্তিকে স্থানীয় লোকজন গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। পরে ওই রাতেই টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে সিএনজি চালিত অটোরিকশার যাত্রী বাদশা মিয়া মারা যান। ওই ঘটনায় অপর আহত যাত্রী ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের ধবুলিয়া গ্রামের রহিজ উদ্দিনের ছেলে রবিউল ইসলাম(৩৫) টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।