Amar Praner Bangladesh

টেন্ডার ছাড়াই সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

 

 

আল-আমিন হোসাইন, পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ

পিরোজপুরের নাজিরপুরে স্থানীয় প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে টেন্ডার বিহীন বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক লক্ষাধিক টাকার সরকারি গাছ কর্তনের অভিযোগ পাওয়াগেছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের খাদ্য গুদাম সংলগ্ন সরকারি খাস জমিতে থাকা রেইট্রি, মেহগনী ও চাম্পল গাছসহ মোট ১৪ টি গাছ কেটেছে প্রভাবশালী ব্যাক্তিরা। স্থানীয় বাসিন্দা নারায়ন চন্দ্র মিস্ত্রী বাদী হয়ে পিরোজপুর জেলা প্রশাসক, নাজিরপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নাজিরপুর থানায় স্থানীয় প্রভাবশালী সুনিল কুমার হালদারের ছেলে জনি হালদার (৩২), মোনাজ উদ্দিন এর ছেলে রিপন শেখ (৩৪), শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাসের ছেলে অনুপ বিশ্বাস (৩৪), মন্নান খাঁর ছেলে মোঃ আসলাম খা, মোশারেফ শেখ, শহীদ শেখদের বিরুদ্ধে গাছগুলো কাটার অভিযোগ করেছেন।

তিনি জানান, প্রায় ৭ লক্ষাধীক টাকার সরকারী গাছ কর্তন করেছে প্রভাবশালীরা। আমি তাদের নিষেধ করলেও তারা আমার অনুরোধ ও প্রশাসনের নিষেধ না শুনে প্রকাশ্যে দিবালোকে গাছ গুলো কর্তন করেছে। তাই আমি প্রশাসনের সব জায়গায় অভিযোগ করেছি। এ বিষয়ে নাজিরপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আল-মামুন জানান, আমরা অভিযোগ পেয়েছি, অভিযোগ পাওয়ার পরে আমরা ঐ স্থানে গিয়ে গাছ কাটার সত্যতা পেয়েছি এবং গাছগুলো যে জায়গায় ছিল সেটি মূলত ডিসিআর ভূক্ত সম্পত্তি, ওদের নামে ডিসি আরও হয়েছে।

বর্তমানে কর্তনকৃত গাছ গুলো ঘটনাস্থলে রাখতে বলা হয়েছে, যারা গাছ কেটেছে তাদেরকে শোকজ করা হয়েছে, দোষী প্রমানিত হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ডিসি স্যারের অনুমতি পেলে গাছগুলো স্পট নিলাম হবে। অভিযুক্ত জনি ও অনুপের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, আমরা ওই জায়গা ডিসি আর হিসাবে নিয়েছি। আমাদের পূর্ব পুরুষরা এই গাছগুলি রোপন করায় আমরা কেটেছি। গাছ কাটার টেন্ডার হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তারা জানান, আমরা অনুমতি নিয়েছি সত্য কিন্তু কোন কাগজ আমাদের কাছে এই মুহুর্তে নেই। অপর অভিযুক্ত রিপন জানান, আমরা গাছ কেটেছি সত্য বর্তমানে গাছগুলো এসিল্যান্ড স্যার জব্দ করে রেখেছেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লাহ্ সাদীদ জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি, তবে গাছগুলোর কোন টেন্ডার হয়নি। টেন্ডারের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। যারা গাছগুলো কেটেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।