Amar Praner Bangladesh

ডাবল মার্ডার মামলার রায় চেয়ারম্যানসহ ১৭ জনের যাবজ্জীবন

 

 

নাজিম সরদার, খুলনা :

 

খুলনার তেরখাদা উপজেলার আলোচিত ডাবল মার্ডার মামলার আসামি ইউপি চেয়ারম্যান এসএম দ্বীন ইসলামসহ ১৭ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এদিকে তথ্য প্রমান না থাকায় মামলার দুই আসামিকে খালাস দিয়েছেন বিচারক।

রোববার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খুলনা দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের বিচারক মো. নজরুল ইসলাম হাওলাদার এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- তেরোখাদা ছাগলাদাহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এস এম দ্বীন ইসলাম (৫৪), মো. আব্দুর রহমান (৫৫), জমির শেখ (২৫), শেখ সাইফুল ইসলাম (৩৫), খালিদ শেখ (৩২), এস্কেন্দার শেখ (৪২), জসিম শেখ (৩৫), হোসেন শেখ (৩০), জিয়ারুল শেখ (২৬), বাহারুল শেখ (২৪), আব্বাস শেখ (২৪), অহিদুল গাজী (৩৪), খাইরুল শেখ (৩৫), কেরামত মল্লিক (৩৫), মাহবুর শেখ (৪৯), বাবু শেখ (৩৫) ও নুর ইসলাম শেখ (৩৭)।

খালাস প্রাপ্তরা হলেন- আবু সাঈদ বিশ্বাস (৩৫) ও আয়েব শেখ (৫০)।

এদিকে মামলার রায় শোনার জন্য তেরখাদা ছাগলাদাহ ইউনিয়ন থেকে কয়েক হাজার মানুষ আদালত চত্ত্বরে ভিড় করেন। এসময় নিরাপত্তা বজায় রাখার জন্য আদালতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৯ সালের ৬ আগস্ট রাতে তেরখাদা উপজেলার পহরডাঙ্গা গ্রামের পিরু শেখ ও তার পরিবার রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। রাত ২টার দিকে আসামিরা দেশিয় অস্ত্র নিয়ে বাড়ির সিধ কেটে ভুক্তভোগীদের ঘরে প্রবেশ করে। এ সময় আব্দুর রহমানের নির্দেশে আসামি সাইফুল হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে পিরুর মাথায় কোপ দেন। পরে অন্য আসামিরা পিরুকে এলোপাতাড়িভাবে কোপাতে থাকেন। পিরু ও তার স্ত্রীর চিৎকার করতে থাকলে পাশের ঘর থেকে ছেলে নাইম বাবাকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসেন। এসময় আসামিরা নাইমকে বাড়ির উঠানে নিয়ে যায়। আসামি খালিদ শেখ ফলাযুক্ত ফুলকুচি দিয়ে নাইমের মাথায় কোপ দেন। যন্ত্রণায় চিৎকার করতে থাকলে আসামি হাবিবুর ও জিয়ারুল চাপাতি দিয়ে নাইমকে কুপিয়ে হত্যা করেন।

পরে গুরুতর অবস্থায় পিরু শেখকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়া হয়। ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পিরু শেখ মারা যান। পরে নিহত পিরুর স্ত্রী ঘটনার দু’দিন পর বাদী হয়ে তেরখাদা থানায় ১৭ জনের নাম উল্লেখসহ নাম না জানা আরও ১২ জনকে আসামি করে মামলা করেন।