Amar Praner Bangladesh

দুর্নীতির কারণেই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি: ফখরুল

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

 

দুর্নীতির কারণেই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার (৬ জুন) দুপুরে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ অভিযোগ করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গ্যাসের দাম বাড়ছে কেন? গ্যাসের দাম বাড়ল তাদের দুর্নীতির কারণে। এক হচ্ছে- তাদের ম্যানেজমেন্ট, তাদের অযোগ্যতা, তাদের ব্যর্থতা। দুই হচ্ছে- গ্যাস তো এখন বিভিন্নভাবে আমদানি করা হচ্ছে। সেখানে তাদের লোকেরাই জড়িত। যেহেতু বিভিন্ন প্রকার গ্যাস তারা আমদানি করছে, বিক্রি করছে। এটাকে মোটামুটি স্টেবল রেখে তাদের মার্কেট যেন ঠিক থাকে। আর সরকারিভাবে গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিয়ে জনগণের পকেট কেটে নিয়ে যাচ্ছে।’

গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা কালকেও বলছি, কে শোনে কার কথা? আজ আবারও বলছি, গ্যাসের দাম আগের জায়গায় ফিরিয়ে নিতে হবে। প্রত্যেকটি ইউটিলিটি সার্ভিস গ্যাস-বিদ্যুৎ-পানির মূল্য সহনশীল রাখার জন্য আমরা আহ্বান জানাচ্ছি।’

গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ফলে সব পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি পাবে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ফলে শিল্প-কলকারখানায় উৎপাদিত প্রত্যেকটা পণ্যের মূল্য আবার বাড়বে; পারসেনটেজ আকারে বাড়ছে। এমনিতে মূল্যস্ফীতি নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে মানুষ। আমরা শুধু নয়, অর্থনীতিবিদরা বলছেন যে, এটা একটা মেজর ক্রাইসিস। এটা যদি না হেন্ডেল না করা যায় তাহলে আমাদের সামনে সমূহবিপদ। প্রায় সব অর্থনীতিবিদ বলছেন, এর মধ্যে সিপিডিও বলেছে। তারপরেও সেই অবস্থা চিন্তা করল না তারা। তারা আবার গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিল।’

‘তারা (সরকার) শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে বাস করে, ১৫ বছর ক্ষমতায় থাকার যে আনন্দ-সুখ, সেটা তারা যাপন করছে। সাধারণ মানুষের যে কষ্ট তা তারা বুঝতে চান না। আমি তো বলি, তারা আসুক এই দুপুরে রৌদ্রের মধ্যে সাধারণ মানুষের সঙ্গে গাছের তলায় গিয়ে দোকানে বসে চা খাক, বনরুটি খাক- তখন কী অবস্থা দাঁড়ায় দেখুক। কিন্তু তাদের মনে তা যাবে না। কারণ জনগণ থেকে তারা সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। আওয়ামী লীগ যখন গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করেছে, লড়াই করেছে তখন কিন্তু চরিত্র ছিল। এখন তারা একটা শোষকের দলে পরিণত হয়েছে। এখন তাদের শোষিতের পক্ষে কথা বলার সুযোগ নাই’- বলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।