দূর্বৃত্তদের অতর্কিত হামলায় আব্দুল্লাহ্পুরে দোকানপাট ভাংচুর ও লুটপাট

 

 

রবিউল আলম রাজুঃ

রাজধানী উত্তরা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ্পুর রেললাইন হইতে প্রধান সড়কের মুখ পর্যন্ত দুই পাশে সারিবদ্ধ দোকানপাট ও বাজার বসে প্রতিদিন। নিত্য প্রয়োজনীয় কম-বেশী সবকিছুই পাওয়া যায় এই ফুটপাত বাজারের দোকান গুলোতে। ৩০/০৬/২০২০ ইং তারিখ আনুমানিক বিকাল ২ ঘটিকার সময় হঠাৎ করে ২-৩শত বিভিন্ন বয়সের লোক এসে দেশীয় অস্ত্র, লাঠি, হকষ্টিক, লোহার রড, লোহার পাইপ, রামদা, বাংলা দা, বাশের লাঠি ইত্যাদি নিয়ে আব্দুল্লাহ্পুর রেললাইন হইতে আব্দুল্লাহ্পুর প্রধান সড়ক পর্যন্ত ঘিরে ফেলে।

তখন তাদের সাথে ৮-১০ টি পিকআপ গাড়ী থাকে। চতুর দিক থেকে আক্রমণ করে আব্দুল্লাহ্পুর চলমান সকল দোকান ভাংচুর করে। দোকানে থাকা নগদ টাকা পয়সা, মোবাইল সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সবকিছু লুটতরাজ করে এবং দোকানঘর ভাংচুর করে দূর্বৃত্তরা দ্রুত চলে যায়। আব্দুল্লাহ্পুরের ব্যবসায়ী এবং দোকানপাটের মালিকরা কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই, এই অতর্কিত হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে ভুক্তভোগীরা জানান।

এই ঘটনার কয়েকদিন পূর্বে প্রমি এগ্রো ফুডস্ লিমিটেড চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনাব  মোঃ এনামুল হাসান খান শহীদ (সিআইপি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক সিআইপি মনোনীত ব্যবসায়ীক শিল্পপতি জনাব আলহাজ্ব শহীদ তার গাড়ী যোগে আব্দুল্লাহ্পুর রেললাইন অতিক্রম করে সামনে আসলে ভ্যান চালিত হকারদের সাথে গাড়ীর জ্যাম সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা হলে এই সামান্য বিষয়কে কেন্দ্র করে কিছু সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোকজন তার উপরে চড়াও হয় এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে তাকে অপমান-অপদস্থ করে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে আহত করে। তিনি সংশ্লিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসা নেন এবং পরবর্তীতে উত্তরা পূর্ব থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

 

যেখানে প্রায় একশত জনকে আসামী করা হয় বলে জানা যায়। এই ঘটনায় একজন সিআইপি’র সাথে এ রকম নির্মম-অসভ্য আচরণে সকলেই মর্মাহত হয়। কিন্তু আজকের দূর্বৃত্তদের হামলা ভুক্তভোগীদের ভাষ্যমতে প্রমি এগ্রো ফুডস্ লিমিটেড  চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনাব  মোঃ এনামুল হাসান খান শহীদ (সিআইপি) সাহেবের নির্দেশে তার ভাগিনা নাজমুলের নেতৃত্বে ঘটনা ঘটেছে বলে দাবী করছে আব্দুল্লাহ্পুরের ফুটপাতের দোকান মালিকরা।

ভুক্তভোগীরা আরো জানান, তাদের মালামাল যেমন- মৌসুমী ফল, আম, কাঠাল সহ অন্যান্য ফল-ফলাদি মাছের দোকানের মাছ, সবজি, মুদি মনোহরী, ঔষধের দোকানের ঔষধ সহ নিত্য প্রয়োজনীয় অনেক কিছু রাস্তায় ফেলে দেয় এবং লুটতরাজ চালায়, কয়েকটি বিকাশের দোকান থেকে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায়, চায়ের দোকানের ফ্রিজ ভেঙ্গে ফেলে। ভুক্তভোগীদের ভাষ্যমতে আব্দুল্লাহ্পুরে এই ঘটনায় ২০-২৫ লক্ষ টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে জানা যায়।

এই ঘটনার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে সকলকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরবর্তী সময়ে আব্দুল্লাহ্পুরের সব দোকানদার ও কর্মচারীরা মিলে জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগান দিয়ে দূর্বৃত্তদের বিচার দাবী করে মিছিল করে। ঐ সময় ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খানের প্রতিনিধি সাইফুল সহ বেশ কয়েকজন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় এবং আশ্বস্থ করে আপনারা ন্যায় বিচার পাবেন।

অন্যদিকে আব্দুল্লাহ্পুরের হামলা ও লুটতরাজের বিষয় নিয়ে প্রমি এগ্রো ফুডস্ লিমিটেড চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনাব  মোঃ এনামুল হাসান খান শহীদ (সিআইপি) সাহেবকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশ’কে জানান, এই ঘটনা সম্পর্কে আমি কিছুই জানতাম না।

প্রকৃতপক্ষে আমি গরীবের বন্ধু সবসময় আমার সাধ্যমতো অসহায় মানুষ জনকে সাহায্য সহযোগীতা করে থাকি। যদিও এই ঘটনার সম্পর্কে আমি কিছুই জানিনা তার পরেও যারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আমার কাছে আসলে আমি যাচাই-বাছাই করে তাদেরকে ক্ষতিপূরণ দিয়ে দিব।

প্রতি ঈদ-কুরবানীতে বা দেশের যেকোন দূর্যোগে সবসময় প্রমি গ্রুপ মানুষের কল্যাণে কাজ করে। আমি আমার জীবনে কোন মানুষের ক্ষতি করি নাই। এই বিষয় নিয়ে উত্তরা পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জের সাথে কথা হলে তিনি জানান, সম্পূর্ণ বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখছি। প্রয়োজনে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব। সম্পূর্ণ এলাকা এবং আশেপাশে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যেকোন সময় যেকোন ধরনের আইনশৃঙ্খলা বিঘ্ন ঘটিয়ে দূর্ঘটনা সংঘটিত হতে পারে বলে জানান এলাকাবাসী।

সম্পূর্ণ এলাকার মধ্যে বেশির ভাগ জায়গা ও রাস্তা পানি উন্নয়ন বোর্ডের। কিছুদিন পরপর পানি উন্নয়ন বোর্ড এসব ভাষ্যমান ফুটপাতের দোকান ভেঙ্গে দিয়ে তাদের সম্পত্তি দখলমুক্ত করলে আবার কিছুদিন পর পূর্বের মতো দোকানঘর বসিয়ে ফুটপাতে ব্যবসা করে এই দোকানিরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই ফুটপাত থেকে মোটা অংকের চাঁদা তুলে কিছু নামধারী সরকার দলীয় লোকজন। এই টাকার ভাগ চলে যায় প্রশাসনের কিছু অসৎ কর্মকর্তাদের কাছে। এই করোনার মধ্যেও থেমে নেই আব্দুল্লাহ্পুরের ফুটপাতের দোকানের ব্যবসা। সবকিছু মিলিয়ে এর মধ্যে চলে ব্যাটারীচালিত গাড়ী সহ অন্যান্য গাড়ী, সব সময় লেগে থাকে ছোট-বড় জ্যাম। জনসাধারণের চলাফেরায় তৈরি হয় দূর্ভোগ। অদ্যবধি হয়নি কোন সুষ্ঠ সমাধান। আব্দুল্লাহ্পুর সংশ্লিষ্ট উত্তরা পূর্ব থানায় একটি মামলা করা হয়। যাহার নং- ০১, তাং- ০১/০৭/২০২০ ইং।