Amar Praner Bangladesh

ধর্ম নিয়ে যারা ষড়যন্ত্র – চক্রান্ত ও বাড়াবাড়ি করছেন তাদেরকে চিহ্নিত করে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

 

 

রবিউল আলম রাজু :

 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ধর্ম নিয়ে যারা ষড়যন্ত্র করছেন, চক্রান্ত ও বাড়াবাড়ি করছেন তারা আর আগাবেন না। আমরা এগুলোকে চিহ্নিত করে অবশ্যই শাস্তির ব্যবস্থা করবো এবং তাদেরকে জনগণের সম্মুখে হাজির করা হবে।

দেশে সাম্প্রদায়িক হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িতদের হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, যারা এ সমস্ত ষড়যন্ত্র করেন তারা এ পথ থেকে ফিরে আসুন। না হলে আপনাদের সম্মুখে বিপদ হাতছানি দিয়ে ডাকছে তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে এবং বিচারের মুখামুখি করা হবে।

আজ সোমবার বিকেলে রাজধানীর উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরস্হ উত্তরা ফ্রেন্ডস ক্লাব মাঠে মুজিব শতবর্ষ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুএ শেখ রাসেলের ৫৮ তম জন্মবার্ষিকী পালন উপলক্ষে ” চিনজীব মুজিব” শীর্ষক আলোচনা প্রায় তিন শতাধিক দুস্থদের মাঝে সেলাইমেশিন বিতরণ অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, হিন্দু-মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব হাজার বছরের কৃষ্টি। সব উৎসবই আমরা হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ধর্মের লোকেরা একসঙ্গে পালন করি। কিন্তু একের পর এক উসকানি দিয়ে, ধর্মীয় যে বিশ্বাস সেখানে আঘাত হেনে দেশে বিশৃঙ্খলার একটা প্রয়াস আমরা দেখতে পাচ্ছি। আমরা কুমিল্লার ঘটনা দেখলাম, নোয়াখালীর ঘটনা দেখেছি এবং গতকাল রংপুরের ঘটনাও দেখেছি। শুরুটা হয়েছিল রামু থেকে, রামুর পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দেখেছি। এছাড়া আমরা জঙ্গির উত্থান ও সন্ত্রাসের উত্থান দেখেছি। এসব কিছুর একটাই টার্গেট ছিল- সেটা হলো কিভাবে এই বাংলাদেশকে বিপদে ফেলা যায়, বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে কিভাবে ছিনিমিনি খেলা যায় তাও আমরা দেখতে পেয়েছি।

তিনি বলেন, গতকাল রংপুরে ২৫টি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে ৯০-৯৫টি বাড়িতে লুট করে গরু-বাছুরসহ সব নিয়ে গেছে। যারা এ কাজ করেছে তাদেরকে আমরা চিহ্নিত করেছি ও অ্যারেস্ট করেছি। আমরা অতি শিগগির তাদেরকে বিচারের মুখোমুখি করবো।

পীরগঞ্জ আমাদের স্পিকারের নির্বাচনী এলাকা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, সেখানে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় যাদের বাড়িঘর পুড়েছে তাদের বাড়িঘর তৈরি করার জন্য টিন ও নগদ টাকা দেওয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা যাতে কষ্ট না পান সেজন্য আমাদের নেতাকর্মীরাও সেখানে কাজ করছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একজন নন্দিত নেতা উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন যখন প্রধানমন্ত্রী একের পর এক বাস্তবে পরিণত করে চলেছেন তখনই এই বিশৃঙ্খলা দেখছি। কিন্তু মূর্খের দল জানে না এটা শেখ হাসিনা। তিনি অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারেন, তিনি বদলে দিতে পারেন। কাজেই এই সমস্ত বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করলে লাভ হবে না। তার জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী। দেশের জনগণ বিশ্বাস করে তিনি যতদিন ক্ষমতায় থাকবেন ততদিন বাংলাদেশ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাবে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শাহাদাৎ বরণ করার পরে আমরা দিশেহারা ও পথভ্রষ্ট হয়ে গিয়েছিলাম জানিয়ে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এরপর প্রধানমন্ত্রী দেশে এলেন এবং সারা বাংলাদেশকে একত্রিত করেছিলেন। দেশে আসার পর তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে তিনি আজ বাংলাদেশকে সম্ভাবনার দেশে পরিণত করেছেন। বিশ্বের বুকেও আজ বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। আমরা সবকিছুতে এগিয়ে যাচ্ছি। জাতিসংঘ যখন এসডিজি অর্জনের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে সম্মাননা দিয়েছেন সেই সময় আমাদের দেশে বিশৃঙ্খলা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আজকে আপনি বাংলাদেশের যে প্রান্তেই যান সব জায়গায় উন্নয়নের সঙ্গে দেখতে পাবেন বঙ্গবন্ধুকন্যার পপুলারিটি। বঙ্গবন্ধুকন্যা যা বলেছেন তিনি তাই করে দেখিয়েছেন। তিনি বলেছিলেন বদলে দেবেন বাংলাদেশকে, আজ বাংলাদেশ বদলে গেছে।

সারাদেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কাজ করছে জানিয়ে তিনি বলেন, নোয়াখালীতে যা ঘটেছে, কুমিল্লায় যা ঘটেছে, হাজীগঞ্জে যা ঘটেছে ও রংপুরে যা ঘটেছে এগুলো আমরা এক সূত্র হিসেবে ধরে নিয়েছি। এগুলোর পেছনে মুষ্টিমেয় কিছু ব্যক্তি রয়েছে। এরই মধ্যে আমরা সন্দেহজনক লোকদের চিহ্নিত ও গ্রেফতার করেছি।

ঢাকা -১৮ আসনের সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ হাবিব হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্টানে বিশেষ অথিতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্বব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান,সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি, সংরক্ষিত মহিলা আসন ঢাকা -৩ এর এমপি ও ঢাকা মহানগর উত্তর মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বেগম শবনম জাহান শিলা।

অনুষ্টানে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাএলীগ, স্বেচছাসেবকলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগসহ সহযোগি অংগ সংগঠনের বিভিন্নস্তরের নেতাকর্মীরা এসময় উপস্হিত ছিলেন।

অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিকে আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। পরে
শেখ রাসেলের ৫৮ তম জন্মবার্ষিকী পালন উপলক্ষে কেককাটা হয়। এসময় ঢাকা -১৮ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোহাম্মদ হাবিব হাসানের পক্ষ থেকে প্রায় তিনশত দুস্থদের মাঝে সেলাইমেশিন বিতরণ করা হয়। অনুষ্টান শেষে এক মনোঙ্গ সাংস্কৃতিক অনুষ্টানের আয়োজন করা হয়।