Amar Praner Bangladesh

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের সময় ঘোষণার পর থেকেই আনন্দে মাতোয়ারা দুই পাড়ের মানুষ

 

মোহাম্মদ খান শাকিল, মুন্সিগঞ্জ থেকে :

 

বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হতে যাচ্ছে আগামী ২৫ জুন। সেদিন সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে সেতুটি। এই ঘোষণার পর থেকে নদীর দুই পাড়ের মানুষের ভিতরে আনন্দ বিরাজ করছে। নদীর দু’পাড়ের মানুষকেই আনন্দে মেতে উঠতে দেখা গিয়েছে।

এ সময় অনেককে দেখা গিয়েছে একে অপরকে মিষ্টি খাইয়ে দিয়ে আনন্দ ভাগাভাগি করছে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ ঘোষণা দিয়েছেন।গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা মতে পদ্মা নদীর নামেই হবে এ মেগা প্রকল্পের নাম। ওবায়দুল কাদের বলেন, “প্রধানমন্ত্রী সেতুটি উদ্বোধন করবেন। এ উপলক্ষে একটি স্মরণীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।”সেখানে বিদেশি কূটনীতিক, বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও বিরোধী দলীয় নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

পদ্মা সেতুর (মূল সেতু) দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার। দুই প্রান্তের উড়ালপথ (ভায়াডাক্ট) ৩.৬৮ কিলোমিটার। সব মিলিয়ে সেতুর দৈর্ঘ্য ৯.৮৩ কিলোমিটার।পদ্মা সেতু চালু হলে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১৯টি জেলার সঙ্গে দেশের বাকি অংশের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন হবে। এছাড়া ঢাকা-ভাঙ্গা সড়কে এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের ফলে এই রুটে যাতায়াতের সময় এক ঘণ্টা কমে যাবে বলে জানিয়েছেন সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মকর্তারা।

সেতু বিভাগের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১০ সালে শুরু হওয়া পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের মূল সেতুর বাস্তব কাজের অগ্রগতি শতকরা ৯৮ ভাগ (১৬ মে’র হিসাব) এবং নদীশাসন কাজের বাস্তব অগ্রগতি শতকরা ৯২ ভাগ। প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি শতকরা ৯৫ ভাগ। সেতু বিভাগ জানিয়েছে, পদ্মা সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের জন্য ম্যুরাল ও ফলক নির্মাণের কাজ চলছে। ৪০ ফুট উচ্চতার দুটি ম্যুরাল স্থাপন করা হচ্ছে মাওয়া ও জাজিরা পয়েন্টে। এই ম্যুরাল দুটিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিকৃতি থাকবে।যাতায়াত সুবিধার পাশাপাশি পদ্মা সেতু অর্থনীতিতেও ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। সমীক্ষা অনুসারে, পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ১.২৩ শতাংশ হারে বাড়বে।

আর দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জিডিপি বাড়বে ২.৩ শতাংশ।ইতিমধ্যেই পদ্মা সেতু পারাপারের জন্য টোল হার নির্ধারণ করেছে সরকার। পদ্মা সেতু পার হতে সর্বনিম্ন টোল দিতে হবে মোটরসাইকেল আরোহীকে। মোটরসাইকেলের জন্য টোল নির্ধারণ হয়েছে ১০০ টাকা, কার ও জিপ ৭৫০ টাকা, পিকআপ এক হাজার ২০০ টাকা, মাইক্রোবাস এক হাজার ৩০০ টাকা। ছোট বাস (৩১ আসন বা এর কম) এক হাজার ৪০০ টাকা, মাঝারি বাস (৩২ আসন বা এর বেশি) দুই হাজার টাকা এবং বড় বাস (৩ এক্সেল) দুই হাজার ৪০০ টাকা।ছোট ট্রাক (৫ টন পর্যন্ত) এক হাজার ৬০০ টাকা, মাঝারি ট্রাক (৫ টনের অধিক থেকে ৮ টন পর্যন্ত) দুই হাজার ১০০ টাকা, মাঝারি ট্রাক (৮ টনের অধিক থেকে ১১ টন পর্যন্ত) দুই হাজার ৮০০ টাকা, ট্রাক (৩ এক্সেল পর্যন্ত) পাঁচ হাজার ৫০০ টাকা এবং চার এক্সেলের ট্রেইলারের টোল ৬ হাজার টাকার বেশি নির্ধারণ করা হয়েছে।প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার দিন থেকেই এই টোল হার কার্যকর হবে।