Amar Praner Bangladesh

পিরোজপুরে হত্যা মামলায় স্ত্রী সালমার যাবজ্জীবন

 

 

পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ

পিরোজপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এস,এম,নূরুল ইসলাম এর আদালত কাউখালী থানার চানচল্যকর আব্দুল হত্যাকান্ডের দায়ে স্ত্রী সালমা আক্তরকে যাবজ্জীবন করাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন। আদালত একই সাথে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

মঙ্গলবার দুপুরে এ রায় ঘোষনাকালে মামলার দুই জন আসামীর মধ্যে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রাপ্ত সালমা আক্তার ওরফে রিতা বেগম অনুপস্থিত ছিলেন।

মামলা সূত্রে জানাযায়, ঝালকাঠী জেলার রাজাপুর থানার বারবাকপুর গ্রামের বাসীন্দা মোফজ্জেল সিকদারের পুত্র আব্দুল মানান সিকদারের সাথে পিরোজপুর জেলার কাউখালী থানার মুক্তারকাঠী গ্রামের মো. মোহাসিন এর মেয়ে সালমার সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর শশুড়ের বাড়িতে কিছু দিন ঘর সংসার করার পর সালমা তার স্বামীকে বাপের বাড়িতে নিয়ে এসে বসবাস করতে থাকেন।

ঘটনার দিন ২০১৩ সালের ১৮ জুলাই বৃহস্পতিবার রাত ১১ টার পর সালমা তার ভাই আসামী রিয়াজ সহ আরও ৫/৬ জন মিলে স্বামী আব্দুল মান্নানকে মারপিট ও স্বাসরোধ করে লাশ ঘরের মেঝেতে পলিটিনের চট দিয়ে ঢেকে রাখে। এর পর শশুর বাড়িতে স্বামীর আত্মহত্যার খবর দেন। খবর পেয়ে নিহতের বাবা ঘটনা স্থলে পৌছে নিহত আব্দুল মান্নান এর শরিরে মারপিট ও কোপের চিহ্ন দেখতে পেয়ে কাউখালী থানা পুলিকে খবর দেন। পরে সালমা আদালতে কাউখালী উপজেলার নাঙ্গলী গ্রামের মোশারেফ হোসেনর পুত্র মো. লিটন ওরফে লিটুকে ঘটনার দায়ে অভিযুক্ত করে স্বীকারোক্তি দেন। বিজ্ঞ আদালত এই স্বীকারোক্তি স্বেচ্ছা প্রনোদিত না বলে মতামত দিলে দির্ঘ তদন্ত শেষে সালমাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দেন।

আদালত অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় এই মামলার অপর আসামী লিটন ওরফে লিটুকে বেকসুল খালাস প্রদান করেন। রাষ্টপক্ষে সহকারী পাবলিক পসিকিউটর (এপিপি) জহুরুল ইসলাম এবং আসামী পক্ষে এ্যাডভোকেট আহসানুল কবীর বাদল ও এ্যডভোকেট আউয়াল মামলা পরিচালনা করেন।