Amar Praner Bangladesh

পিরোজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজ

 

 

(এবারের নির্বাচনেও বিপুল ভোটে বিজয়ী হবার আশাবাদী)

 

ভাণ্ডারিয়া প্রতিনিধি :

পিরোজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পিরোজপুর জেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সদ্য বিদায়ী জেলা পরিষদ প্রশাসক, পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মহিউদ্দিন মহারাজ। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে গত ১১ সেপ্টেম্বর জেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে তার মনোননয়নপত্র জমা দেন।
উলে¬খ্য, গত ২০১৬ সালের জেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচনেও মহিউদ্দিন মহারাজ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেছিলেন। সে সময়ে তার প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ছিলেন আওয়ামী লীগের সমর্থিত পিরোজপুর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার বিষয়ে সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও প্রশাসক মো. মহিউদ্দিন মহারাজ বলেন, নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কোন দল অংশগ্রহন করছে না। তাই নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ন এবং গ্রহনযোগ্যতার জন্য প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী থাকা উচিৎ। তাছাড়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে দল শুধু একজন প্রার্থীকে সমর্থন বা মনোনয়ন দিয়েছেন। এখানে দলীয় নৌকা প্রতিক বরাদ্ধ দেওয়া হয় নি। সেক্ষেত্রে এ নির্বাচন কোন দলীয় নির্বাচন নয়। জেলা পরিষদের নির্বাচনে অন্য প্রতিকে নির্বাচন হবে, সেক্ষেত্রে আমি মনে করি এ নির্বাচনটা সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া উচিৎ। কেননা একের অধিক প্রার্থী থাকলে নির্বাচনটাও একটা উৎসবমূখর হয়ে উঠবে। কে জিতবে বা কে হারবে সেটা নির্ধারণ তো করবে ভোটাররা। তাই তিনি জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটারদের সকল ভয়ভীতি, রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে তাদের পছন্দমতো ব্যক্তিকে ভোট দেওয়ার আহবান জানান।

তিনি আরও বলেন, ২০১৬ সালের জেলা পরিষদের নির্বাচনে আমি বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেছিলাম। চেয়ারম্যান থাকা কালে পিরোজপুর জেলা পরিষদকে একটি দুর্নীতিমুক্ত মডেল জেলা পরিষদে পরিনত করেছি। জেলা পরিষদের মাধ্যমে জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন বাস্তবায়ন করেছি। সকল উন্নয়নমূলক কাজে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে দলীয় লোকজনকে সম্পৃক্ত করেছি। আগামী ১৭ অক্টোবরের নির্বাচনে আমি দলের মনোনয়ন বোর্ডের কাছে দলীয় মনোনয়নের জন্য আবেদন করেছিলাম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমার আবেদন পুন:বিচেনার জন্য অনুরোধ করছি। আশা করি দলীয় মনোনয়নের ক্ষেত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ‘মানবতার মা’ জননেত্রী আমার আবেদন পূন:বিবেচনা কববেন।

পিরোজপুরে জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৬ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদিকা এবং পৌর আওয়ামীলীগের সদস্য সালমা রহমান হ্যাপি। সতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও প্রশাসক মো. মহিউদ্দিন মহারাজ, ভান্ডারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবদুল্লাহ আল মাসুদ, নেছারাবাদ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মোসাঃ হাসিনা মনি, সহিদুজ্জামান সিকদার এবং মোঃ আমির হোসেন। এ ছাড়া সাধারণ সদস্য পদে (পুরুষ) ৩৪ জন এবং সংরক্ষিত (নারী) সদস্য পদে ১৩ জন প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. জিয়াউর রহমান খলিফা।

পিরোজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলার ৫৪টি ইউনিয়ন,দুইটি পৌরসভা এবং ৭টি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান সহ মোট ভোটার সংখ্য ৭৪৭ জন। এরমধ্যে পিরোজপুর সদর উপজেলায় ভোটার ১০৭ জন, নাজিরপুর উপজেলায় ১২০ জন, নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠী) উপজেলায় ১৪৬ জন, ভান্ডারিয়ায় ৯২ জন, কাউখালীতে ৬৮ জন, ইন্দুরকানীতে ৬৮ জন এবং মঠবাড়িয়া উপজেলায় ১৪৬ জন।