Amar Praner Bangladesh

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বরিশালে বিএনপির শোভাযাত্রা

 

 

গাজী আরিফুর রহমান, বরিশাল :

 

বিএনপির ৪৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কোনো রকম বাধা ছাড়াই দীর্ঘদিন পর বরিশালে বিএনপির শোভাযাত্রা শেষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার ( ১ সেপ্টেম্বর ) সকালে বরিশাল সদর রোডের অশ্বিনী কুমার হল সংলগ্ন বিএনপি কার্যালয় থেকে এ শোভাযাত্রা বের করা হয়।

শোভাযাত্রাটি নগরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার দলীয় কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়। এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক থাকলেও শোভাযাত্রায় কোনো ধরনের বাধা দেয়নি।

এর আগে ২৭ আগস্ট বরিশালের বাকেরগঞ্জের গারুরিয়া ইউনিয়নের হেলেঞ্চা গ্রামে বিএনপির প্রস্তুতি সভায় হামলার অভিযোগ উঠে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে। এতে বিএনপির ৮-১০ জন নেতা-কর্মী আহত হন। ২৫ আগস্ট মেহেন্দীগঞ্জে পৌর বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিলে শ্রমিক লীগ তা করতে দেয়নি। ২৩ আগস্ট হিজলায় বিএনপির সমাবেশ চলাকালে একই স্থানে আওয়ামী লীগ সমাবেশ করে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নগরের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলটির নেতা-কর্মী ও সমর্থকেরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমবেত হন। পরে বেলা ১১টার দিকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছবিসংবলিত ব্যানার, ফেস্টুন ও প্ল্যাকার্ড শোভাযাত্রায় দেখা যায়।

শোভাযাত্রার শুরুতে বিএনপির মহানগর নেতারা বক্তৃতা করেন। তাঁরা বলেন, গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা, ভোটের অধিকার, বাক্স্বাধীনতা অর্জনের অধিকার আদায়ের লড়াই-সংগ্রামের প্রেক্ষাপটে এবার জনগণের দল বিএনপির ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে। এখানে কেবল বিএনপির নেতা-কর্মী-সমর্থক নন, বরং মুক্তিকামী মানুষেরাও এই শোভাযাত্রায় অংশ নিচ্ছেন।

ফলে আজকের এই শোভাযাত্রা চলমান ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র লড়াই-সংগ্রামে গণমানুষের অংশগ্রহণের প্রতিফলন হয়েছে। অচিরেই এই সরকারের পতনের মধ্য দিয়ে জনগণের অধিকার জনগণের মধ্যে ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

শোভাযাত্রায় অংশ নেন বরিশাল মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান খান, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক মাহাবুবুল হক, সদস্যসচিব মীর জাহিদুল কবির, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক আলী হায়দার, যুগ্ম আহ্বায়ক জিয়া উদ্দিন সিকদার, হাবিবুর রহমান, বিএনপি নেতা অধ্যক্ষ আবদুর রশিদ খান, মহিলা দলের সভাপতি অধ্যাপক ফারহানা তিথ, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মাহাবুবুর রহমান, সম্পাদক মশিউর রহমান, মহানগর শ্রমিক দলের আহ্বায়ক ফয়েজ আহমেদ খান, মহানগর যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাজাহারুল ইসলাম, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক এইচ এম তসলিম উদ্দিন প্রমুখ।

এছাড়া শোভাযাত্রায় মহানগরের ৩০টি ওয়ার্ডের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ১২ আগস্ট জ্বালানি তেলসহ সব নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি, পরিবহন ভাড়া বৃদ্ধি ও লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে সমাবেশ শেষে ছাত্রদল মিছিল বের করলে বাধা দেয় পুলিশ। ১৮ জুলাই বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের ধস্তাধস্তি হয়।