Amar Praner Bangladesh

ফেডারেশন কাপের নতুন চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস

ক্রীড়া প্রতিবেদক:

ফেডারেশন কাপের গত আসরের ফাইনালেও উঠেছিল বসুন্ধরা কিংস। কিন্তু ঢাকা আবাহনীর কাছে হেরে রানার্স-আপ হয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল তাদের। এবার টানা দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনালে ওঠে তারা। এবার আর হতাশ হতে হয়নি।

ফাইনালে কোস্টারিকান স্ট্রাইকার দানিয়েল কলিনদ্রেসের জোড়া গোলে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটিকে ২-১ গোলে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে বসুন্ধরা কিংস।

এর মধ্য দিয়ে ফেডারেশন কাপের ৩৯ বছরের ইতিহাসে সপ্তম নতুন চ্যাম্পিয়ন পেল টুর্নামেন্টটি। আগের ৩০ আসরের শিরোপা জিতেছিল ছয়টি দল। সবশেষ ২০১২ সালে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র নতুন দল হিসেবে ফেডারেশন কাপের শিরোপা জিতেছিল। ৮ বছর পর সেই তালিকায় যুক্ত হলো বসুন্ধরা কিংস।

অন্যদিকে ক্লাবটির ৮৭ বছরের ইতিহাসে প্রথমবার ফাইনালে এসেও শিরোপা জেতা হলো না রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটির। গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদ লিটনের দৃষ্টিকটু ভুলে আক্ষেপ সঙ্গী করেই মাঠ ছাড়ে তারা।

রোববার বিকেলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে পুরান ঢাকার ক্লাবটির বিপক্ষে শুরু থেকেই প্রভাব বিস্তার করে খেলে করপোরেট প্রতিষ্ঠানের দল বসুন্ধরা কিংস। কিন্তু গোলের দেখা পাচ্ছিল না। ম্যাচের ৪১ মিনিটে তারা জালের নাগাল পায়। ডান দিক থেকে বিশ্বনাথ ঘোষের ক্রসে ডি বক্সের মধ্যে হেডে জালে পাঠান কোস্টারিকার হয়ে ২০১৮ বিশ্বকাপে খেলা কলিনদ্রেস। তার গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় কিংসরা।

বিরতির পর ৬৪ মিনিটে সমতা ফেরায় রহমতগঞ্জ। কর্নার পেয়েছিল গোলাম জিলানির শিষ্যরা। কর্নার থেকে উড়ে আসা বল হেডে জালে জড়ান রহমতগঞ্জের গাম্বিয়ান স্ট্রাইকার মোমুদু বা। স্বস্তি ফেরে রহমতগঞ্জ শিবিরে।

কিন্তু তাদের সেই স্বস্তিকে একরাশ হতাশা দিয়ে ঢেকে দেন গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদ লিটন। তার অবিশ্বাস্য বোকামিতে পিছিয়ে পড়ে রহমতগঞ্জ। সতীর্থের ব্যাক পাসে ডি বক্সের মধ্যে ডান দিকে বল পেয়েছিলেন লিটন।সূত্র: রাইজিংবিডি ডট কম

তিনি বলটি হাত দিয়ে ধরতে পারতেন। সেটা না করে কিক নিতে চেয়েছিলেন। ছোঁ মেরে তার কাছ থেকে বল কেড়ে নেন কলিনদ্রেস। সামনে এসে ফাঁকা পোস্টে আলতো টোকায় বল পাঠিয়ে দেন। বাকি সময়ে এই গোলটি আর শোধ দিতে পারেনি রহমতগঞ্জ। তাতে ৮৭ বছরের আক্ষেপও ঘোচাতে পারেনি।

২-১ গোলের হারে নিঃশ্বাস দূরত্বে এসেও শিরোপা হাতছাড়া করে রহমতগঞ্জ। আর দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় শিরোপা জিতে নেয় বসুন্ধরা কিংস।

ম্যাচ সেরা হন বসুন্ধরা কিংসের বিশ্বনাথ ঘোষ। টুর্নামেন্ট সেরা হন দানিয়েল কলিনদ্রেস। সর্বোচ্চ গোলদাতা হন পুলিশ এফসির ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার রিভেরা সিডনি অ্যাডাম (৪ গোল)। ফেয়ার-প্লে ট্রফি জিতেছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব।

চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস ট্রফি ও ৫ লাখ টাকা এবং রানার্স-আপ রহমতগঞ্জ ট্রফি ও ৩ লাখ টাকা প্রাইজমানি পায়।