বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিংয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

 

বিনোদন ডেস্ক :

 

বড় অসময়ে চলে গেলেন বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত। মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই জীবনের প্রতি সমস্ত আগ্রহ হারিয়ে ফেললেন রাজপুত যুবক।

রবিবার মুম্বাইয়ের বান্দ্রার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় সুশান্তের ঝুলন্ত দেহ। বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে অ্যান্টি ডিপ্রেশন ওষুধ, মিলেছে প্রেসক্রিপশন। তবে মেলেনি কোনো সুইসাইড নোট।

মুম্বাই পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে এই মৃত্যু আত্মহত্যা বলেই মনে করা হচ্ছে। সেই আত্মত্যার তত্ত্বই আপাতত সত্য বলে ধরে নিয়েছে গোটা দেশ। সোশ্যাল মিডিয়ায় শুধুই অভিনেতা ও তার ‘আত্মহত্যা’ নিয়েই আলোচনা। তবে এমন মুহূর্তে অভিনেতার পরিবার কিন্তু চমকে দিয়ে সুশান্তের মৃত্যুর সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছে।

রবিবার সকালে সুশান্তের বাড়ি থেকে ফোন পায় মুম্বই পুলিশ। বাড়িতে এসে অভিনেতার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করেন তারা। ফরেন্সিক দল নমুনা সংগ্রহ করে অভিনেতার বাড়ি থেকে। হাসপাতালে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে সুশান্তের দেহের।

এরই মধ্যে সুশান্তের মামা সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। তার দাবি, ‘এটা হত্যা।’ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছে সিবিআই তদন্তের আর্জি জানিয়েছেন তিনি।

১৯৮৬ সালের ২১ জানুয়ারি পাটনায় জন্মগ্রহণ করেন সুশান্ত সিংহ রাজপুত। পরবর্তীকালে দিল্লিতে চলে আসে তার পরিবার। দিল্লি কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়েও ভর্তি হন। কিন্তু সেইসময় থেকেই থিয়েটারের দিকে মন দেন তিনি। এর পাশাপাশি নাচও শেখেন। এর জন্য ঠিকমতো পড়াশোনা শেষ করতে পারেননি তিনি।

অভিনয়ের তাগিদ থেকেই শেষ মেশ মুম্বাইয়ে চলে আসেন সুশান্ত। সেখানে ২০০৮ সালে প্রথম একতা কাপুরের প্রযোজনায় ‘কিস দেশ মে হ্যাঁ মেরা দিল’ সিরিয়ালে অভিনয় করার সুযোগ পান।

এরপর কাই পো চে’, ‘এম এস ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’, ‘কেদারনাথ’, ‘সঞ্চরিয়া’ অসংখ্য ছবি দিয়ে তিনি ছোট পর্দা থেকে বলিউডের বড় পর্দায় সফল অভিনেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। সবচেয়ে বেশি আলোচনার কেন্দ্রে এসেছিলেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনির বায়োপিকে অভিনয়ের মাধ্যমে। সুশান্তর ক্যারিয়ারে এটাই প্রথম সিনেমা যা বেশ ভালো ব্যবসা করেছিল। শ্রদ্ধা কাপুরের বিপরীতে তাকে ‘ছিচোরে’তে দেখা গিয়েছিল সর্বশেষ।