Amar Praner Bangladesh

বিএনপি-জামায়াতের মানববন্ধনে ইউপি চেয়ারম্যানের বাঁধা নিয়ে তোলপাড়!

 

আ: রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি :

 

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার সাগরদীঘি বাজারে বিএনপি-জামায়াতের মানববন্ধন কর্মসূচিতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত সিকদার বাঁধা দেওয়ার ঘটনায় স্থানীয় পর্যায়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এ নিয়ে উভয় পক্ষে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। জানা যায়, ২০১৯-২০ অর্থ বছরের কর্মসৃজন কর্মসূচির রাস্তার কাজ নিয়ে স্থানীয় জামায়াত নেতা হাবিবুল্লাহ বাহারের সাথে সাগরদীঘি ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারের বিরোধ সৃষ্টি হয়। ওই বিরোধকে কেন্দ্র করে স্থানীয় বিএনপি-জামায়াত নেতারা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে এলাকার সহস্রাধিক নারী-পুরুষ একত্রিত হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ও আ’লীগ নেতা হেকমত সিকদারের পক্ষে পাল্টা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে।

এরপর একই বিষয় নিয়ে তিন বছর যাবত দফায় দফায় বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে আসছে। বার-বার মানববন্ধন করায় সাগরদীঘি বাজার ও আশপাশের এলাকার লোকজন বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেছে। স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) সকালে উপজেলার সাগরদিঘী বাজারে বিএনপি-জামায়াতের অপরাজনীতি ও অপপ্রচারের প্রতিবাদে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও আওয়ামী যুবলীগের পক্ষ থেকে বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হয়। একই স্থানে একই সময় জামায়াত নেতা হাবিবুল্লাহ বাহারের নেতৃত্বে স্থানীয় বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা মানববন্ধন কর্মসূচির ঘোষণা দেয়।

এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান উভয় পক্ষকে তাদের কর্মসূচি বন্ধ করার আহ্বান জানান। এ সময় এলাকার আওয়ামীলীগের কর্মী ফয়সাল মাহমুদ সুজন ও মো. জুনাব আলী বাজার করতে যাওয়ার পথে জনৈক জিন্নত আলী ও জামায়াত নেতা হাবিবুল্লাহ সুজনের নেতৃত্বে বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা তাদের দুজনকে মারপিট করে আটকে রাখে। ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত সিকদার ও ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতাকর্মীরা তাকে উদ্ধার করতে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়।

এ সময় ছাত্রলীগ-যুবলীগের কর্মীদের ১০-১২টি মোটরসাইকেল বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা ভাংচুর করে। এক পর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারকে বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা আঘাত করার চেষ্টা করলে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পরে সাগরদীঘি ফাঁড়ির পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় উভয় পক্ষের অন্তত চার কর্মী-সমর্থক আহত হয়েছে। তাদেরকে স্থানীয় ক্লিনিক ও সখীপুর ইপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সাগরদীঘি বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মো. চান মাহমুদ মনির জানান, কোন ইস্যু ছাড়াই জনপ্রিয় ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারের বিরুদ্ধে বার বার মানববন্ধন কর্মসূচি দেওয়ায় বাজারের বণিক ভাইয়েরা অতিষ্ঠ-বিরক্ত। বৃহস্পতিবার আবারও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করার চেষ্টা করলে আশপাশের লোকজন প্রতিহত করার চেষ্টা করে। এ সময় ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতাকর্মীরা সাধারণ মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসে।

ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় আহত বিএনপি নেতা শাবান আলী জানান, ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত আলী নানা অপকর্ম করে জনগনকে অতিষ্ঠ করে তুলেছে। তারই প্রতিবাদ করতে তারা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতেছিলেন। এ সময় আ’লীগের কর্মী-সমর্থকরা হামলা চালায়। ইউপি চেয়ারম্যান ও আ’লীগ নেতা হেকমত সিকদার জানান, বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা বিনা ইস্যুতে বার বার তার বিরুদ্ধে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে থাকে। ৪ আগস্টও একই রকমের আয়োজন করায় স্থানীয় জনগন বিক্ষুব্ধ হয়ে প্রতিহত করার চেষ্টা করলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

শনিবার (৬ আগস্ট) দুপুরেও তারা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের শোকাবহ আগস্ট উপলক্ষে সাঁটানো পোস্টার-ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলেছে। ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম লেবু জানান, হেকমত সিকদার সাগরদীঘি ইউনিয়নের একজন জনপ্রিয় চেয়ারম্যান। স্থানীয় বিএনপি-জামায়াত সমর্থিতরা ইউপি চেয়ারম্যানের জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে এলাকায় নানাবিধ অপপ্রচার চালিয়ে হেকমত সিকদারকে হেয় করার চেষ্টা করছে।

ঘাটাইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজাহারুল ইসলাম জানান, সাগরদীঘি বাজারের ঘটনায় উভয় পক্ষই থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখে প্রকৃত দোষী চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।