Amar Praner Bangladesh

ভান্ডারিয়ার সফল কৃষক আবু বকর ছিদ্দিক শিক্ষিত বেকারদের কৃষি পেশায় আত্মনিয়োগ করতে কাজ করে যাচ্ছেন

 

 

মোঃ লোকমান হোসেন, ভান্ডারিয়া প্রতিনিধি :

 

ভান্ডারিয়া উপজেলাধীন ৭ নং গৌরীপুর ইউনিয়নের কৃষক মোঃ আবু বকর ছিদ্দিক ১৯৭৫ সনের ৭ ই আগস্ট এক দরিদ্র কৃষক পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। পারিবারিক অনেক কষ্টের মধ্য দিয়ে ১৯৯০ সনে এস.এস.সি, ১৯৯২ সনে এইচ.এস.সি এবং ১৯৯৪ সনে ভান্ডারিয়া সরকারি কলেজ থেকে বি.এ পাশ করেন। দরিদ্রতার জন্য ১৯৯২ সনে চট্টগ্রাম গিয়ে একটি পোষাক শিল্পে কাজে যোগ দেন।

১৯৯৫ সনে একটি বেসকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা পেশায় চাকুরী হলে বাড়ীতে চলে এসে চাকুরীতে যোগদান করেন। সামান্য বেতন ১৭৩৫ টাকায় সংসার চলে না বিধায় তিনি কৃষিকে দ্বিতীয় প্রধান পেশা হিসেবে কাজ শুরু করেন। তিনি ধীরে ধীরে কৃষি কাজে মনযোগী হন এবং বানিজ্যিকভাবে খামার স্থাপন করে কিছুটা লাভবান হন এবং কৃষি কাজ আরও সম্প্রসারণ করেন। তার উৎপাদিত কৃষি বিক্রয় করে যে অর্থ তিনি উপার্জন করেন তা দিয়ে সংসার খরচ, ভাই-বোনদের লেখাপড়া চালিয়ে যান।

এভাবে তিনি কৃষিতে লাভবান হয়ে ৩ বিঘা জমি ক্রয় করেন এবং খামার আরও সম্প্রসারণ করেন। তিনি কৃষি বিষয়ক বিভিন্ন প্রশিক্ষণ নিয়ে আধুনিক ভাবে কৃষিতে আত্মনিয়োগ করে লাভবান হওয়ায় বিভিন্ন প্রচার প্রচারনা মাধ্যমে তার সফলতার কথা চারিদিকে ছড়িয়ে পরে। তারই ধারাবাহিকতায় বাণিজ্যিক সবজি চাষ করে সফলতার জন্য ২০১৭ সনে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে “বঙ্গবন্ধু কৃষি পুরষ্কার” লাভ করেন। এর পর তিনি দক্ষিনাঞ্চলে সর্ব প্রথম অফ সিজনে তরমুজ ও রকমেলন চাষ করে ব্যপক সফলতা অর্জন করেন।

কৃষিতে আধুনিকায়নের জন্য তিনি এ অঞ্চলে সর্বপ্রথম মালচিং পেপার ব্যাবহার করেন। শিক্ষিত বেকারদের কৃষি কাজে আত্মনিয়োগে আবু বকর ছিদ্দিক অনেক বড় ঝুঁকি নেন। নিজেই সার, বীজ ও কীটনাশকের দোকান করেন এবং শিক্ষিত বেকারদের কৃষি কাজে ব্যবহারের জন্য বাকিতে সার, বীজ, কীটনাশক দিয়ে থাকেন।

তিনি হাতে কলমে তাদের কৃষি কাজের প্রশিক্ষন প্রদান করেন এবং তাদের খামার পরিদর্শণ করে বিভিন্ন ধরণের পরামর্শ দেন। ফসল ওঠার পর সেই কৃষকগণ সার, বীজ ও কীটনাশকের টাকা পরিশোধ করে লাভের অর্থ পেয়ে খুব খুশি হন। এমন অনেক যুবকদের সাথে আলাপ করে তার সম্পর্কে এমন তথ্য পাওয়া যায়। এর মধ্যে মোঃ জসিম উদ্দিন, বেল্লাল খান, নান্টু পাহলান, সিফাত হোসেন উল্লেখযোগ্য। শিক্ষক এবং কৃষক আবু বকর ছিদ্দিক বলেন শিক্ষিত বেকারদের সফলতার জন্য আমি নিজ অর্থ খরচ করে যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছি।

যদি সকল ডিলার ও অর্থ বিত্তবানরা যদি এলাকার শিক্ষিত যুবকদের সহযোগীতা করে তাহলে কৃষিতে আরও সফলতা আসবে। শিক্ষক এবং কৃষক আবু বকর ছিদ্দিক বাংলাদেশ বেতার বরিশালে একাধিকবার সাক্ষাতকার দিয়েছেন। সেখানেও তিনি শিক্ষিত বেকারদের লাভজনক কৃষি পেশায় আত্মনিয়োগ করে আত্ম নির্ভরশীল হতে আহবান করেছেন।

আবু বকর ছিদ্দিক এর খামারে সারা বছর ৮ জন শ্রমিক কাজ করে যাচ্ছেন। তারা তাদের দারিদ্রতা দূর করে পরিবার পরিজন নিয়ে সুখে আছেন। আবু বকর ছিদ্দিক আধুনিক কৃষি পদ্ধতি ছড়িয়ে দিয়ে কৃষক ভাইদের অবস্থার উন্নতিতে কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা আশা করি এমন আবু বকর ছিদ্দিক প্রত্যেক ঘরে ঘরে জন্ম হোক আর সোনার বাংলা গড়তে আত্ম নিয়োগ করুক।