Amar Praner Bangladesh

‘ভোটের দিন বিএনপি পল্টনে বসে মিডিয়ার সামনে কান্নাকাটি করে’

 

 

মোমিনুল ইসলামঃ

 

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, বিএনপি মিডিয়া বেইজড রাজনৈতিক সংগঠন। তারা ভোটের দিন নাটক রচনায় পটু। আর পল্টনে বসে মিডিয়ার সামনে কান্নাকাটি, ভোট বর্জন করে। তারা ভোটকেন্দ্রে এজেন্ট খুঁজে পায় না। এজেন্টরা যায় সিলেট, কক্সবাজার, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়া ঘুরতে। এই হচ্ছে বিএনপি। আর সব দোষ আওয়ামী লীগের, সব দোষ বঙ্গবন্ধু কন্যার, এ ব্যবসা আর বাংলাদেশে হবে না।

রোববার ( ১৯ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে নিজ দফতরে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আলাপচারিতায় এ সব কথা বলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘দেশে নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী।’

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচনি প্রেসক্রিপশন বিএনপি’র কাছ থেকে শিখতে হবে না। বাংলার জনগণ বিএনপি’র প্রেসক্রিপশন গুনতে চায় না।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে খুনির অনুসারী অভিযোগ করে ডা. মুরাদ হাসান বলেন, ‘সে কী আর নির্বাচনি ফরমুলা দেবে?’

ডা. মুরাদ হাসান বলেন, ‘জনগণ তাদের খুশিমতো নির্বাচনে ভোট দিবেন। তারা সিদ্ধান্ত নেবেন কারা দেশ পরিচালনা করবেন?’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনকালীন সময়ে আওয়ামী সরকারই তত্ত্বাবধায়ক সরকার। নির্বাচন কমিশনের অধীনেই নির্বাচন হবে। বিএনপি আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না। নির্বাচন কোনো সরকারের অধীনে হয় না। নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। সব ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের হাতে চলে যায়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সেই স্বপ্ন দেখে আর লাভ নাই। নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মিথ্যা স্বপ্ন দেখে কোনো লাভ হবে না।’

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান আরও বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশ বদলে গেছে। বাংলাদেশ এখন সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে চলছে গতিময়তার সঙ্গে। খাদ্যের কোনো সংকট নেই বরং খাদ্য রফতানিকারক দেশ হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্বে পরিচিতি পাচ্ছে। মাথা পিছু আয় এখন দুই হাজার ডলারের ওপরে। এটিই হলো বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। এ বদলে যাওয়া কোনো জাদুর কারণে হয়নি। এ বদলে যাওয়া হয়েছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে।’