Amar Praner Bangladesh

মন্ত্রী রাসেলের দূর্গ ভাঙ্গতে ষড়যন্ত্রকারীরা বাস্তবায়ন করতে চাচ্ছে নীল নকশা

(বেছে বেছে ক্লীন ইমেজের নেতাদের টার্গেট করেই চলছে অপপ্রচার, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আদর্শ ভিত্তিক রাজনীতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে যুদ্ধ অপরাধীদের দোষররা নীল নকশা তৈরি করে একের পর এক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের আস্থাভাজন কাউন্সিলরদেরকে নিয়ে মিথ্যা খবর প্রকাশিত করার হীন চেষ্টায় মন্ত্রীর দূর্গে আঘাত করে মীর জাফরের ভূমিকায় নেমেছে হাইব্রীড অনুপ্রবেশকারীরা।)

 

প্রাণের বাংলাদেশ ডেস্ক :

 

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রাজনৈতিক অঙ্গনে গাজীপুর টঙ্গী সহ আশেপাশের সকল এলাকা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একটি বিশাল দূর্গ। আর এই দূর্গের প্রধান আকর্ষণ ছিলেন শহীদ আহসান উল্লাহ্ মাষ্টার এমপি। বর্তমান সময়ে তাঁর সুযোগ্য সন্তান যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি আওয়ামীলীগের এই দূর্গকে ধরে রেখেছেন তাঁর বিচক্ষণ রাজনৈতিক অভিজ্ঞতায়।

এ কারণেই প্রধানমন্ত্রী তাঁকে বিশেষভাবে স্নেহ করেন। গাজীপুর আওয়ামীলীগের এই দূর্গকে অর্থাৎ প্রতিমন্ত্রী রাসেলের দূর্গ ভাঙ্গতে ষড়যন্ত্রকারীরা একেছে নীল নকশা। তারই পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের আস্থাভজন কাউন্সিলর সহ আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের কর্মী ও নেতাদের বিরুদ্ধে একের পর এক চলছে মিথ্যা সংবাদ।

মন্ত্রীর দূর্গে আঘাত হানার বিভিন্ন পরিকল্পনা এটে অনুপ্রবেশকারী হাইব্রীডরা নিজেদের অভ্যন্তরে কোন্দল সৃষ্টি করে একজন অপরজনের বিরুদ্ধে কাদা ছোড়াছুড়ির পরিবেশ সৃষ্টি করে গাজীপুরের আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে কলুষিত করার চেষ্টা করছে মীর জাফরের দলেরা। ইতিমধ্যে অলিম্পিয়া টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মতিউর রহমান (বি.কম মতি), নিউ মেঘনা টেক্সটাইলের চেয়ারম্যান জাহিদ আল মামুন, ৪৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূরুল ইসলাম নূরু, বিল্লাল হোসেন মোল্লা সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী গাজীপুর মহানগর যুবলীগ, কানন মোল্লা, টঙ্গী থানা ছাত্রলীগের সভাপতি, গিয়াস উদ্দিন সরকার- কাউন্সিলর ৫৭ নং ওয়ার্ড, রাসেল সরকার- গাজীপুর মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক, সাইফুল ইসলাম গাজীপুর মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এরা ছাড়াও এরকম অনেকের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা সহ অনলাইন ভার্সন ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় বিভিন্ন সত্য মিথ্যা সংমিশ্রিত অপবাদ দিয়ে কম বেশি সংবাদ প্রচার করে গাজীপুর সহ দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছে এবং এখনো করে আসছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সবসময় যারা ভাল চায়না অথচ মুখে আওয়ামীলীগের কথা বলে এমন মুনাফিকের দলেরা।

মন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ কাউন্সিলরদের টিসিবি ক্যালেঙ্কারীর মতো মিথ্যা সংবাদে জড়াতেও এসব ষড়যন্ত্রকারীদের বুঁক কাঁপেনি। একজন ক্রীড়া প্রেমিক ফুটবল ফেডারেশনের সদস্য ও টঙ্গী থানা আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক এবং গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ৪৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ নুরুল ইসলাম নুরুর সফলতায় নিন্দুকের মিথ্যাচারের গুজবে বিভ্রান্ত নয় জনগণ। তার মতো পৈত্রিক সম্পত্তিতে ধনাঢ্য ব্যক্তিকে নিয়েও কটাক্ষ করতে পিছ পা হয়না এসব নিন্দুকেরা।

গাজীপুর- ২ আসনের সাংসদ আলহাজ্ব জাহিদ আহসান রাসেল যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রি এর রাজনৈতিক ইমেজকে প্রতিহত করতে এক শ্রেণির হাইব্রীড অনুপ্রবেশকারীরা মরিয়া হয়ে মিথ্যা কুরুচীপূর্ণ মিথ্যা তথ্য সংমিশ্রিত সংবাদ প্রকাশ করে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ভাবমূর্তি নষ্ট করার পায়তারা করছে বলে জানায় গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনর বিভিন্ন সুশীল সমাজের সম্মানিত ব্যক্তিরা। তারা দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশকে বলেন, সম্প্রতি কিছু কু-চক্রীমহল মিথ্যা তথ্য সংবেলিত মুখরোচক খবর বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় এবং অনলাইন ভার্সনে পাঠিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াবার চেষ্টা করছে।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি এবং গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মতিউর রহমান মতির দেখানো পথে চলে গাজীপুরের আওয়ামীলীগ এখন দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে ইমেজের প্রশ্নে রয়েছে তুঙ্গে। শুধু গাজীপুর নয়, সুন্দর কাজের প্রক্রিয়া বাস্তবরুপ নিয়ে মহানগর পর্যায়ে পৌঁছে সারাদেশে গাজীপুরের রাজনৈতিক ইমেজ আদর্শ হয়ে দাঁড়িয়েছে, তখনই স্বাধীনতার বিরোধীরা নতুন করে গাজীপুরে সোচ্চার হয়ে ষড়যন্ত্র করছে।

প্রকৃত প্রতিমন্ত্রী রাসেলের রাজনৈতিক প্রেমিকরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বুকে লালন করে আসছে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের সোপানে একাগ্রমনে সৎ ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে একটি সফল অবস্থান গড়ে তোলার কারণে কিছু রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হীংসাত্মক মনমানসিকতা চরিতার্থ করার প্রয়াসে মনগড়া মিথ্যা সংবাদকে পুঁজি করে ঘোলা পানিতে মাছ ধরার চেষ্টা করছে। দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশের সাথে কথা হলে হিউম্যান রাইটস্ অর্গানাইজেশনের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক রাজ বলেন, বঙ্গবন্ধুর আমলে যখন তার জনপ্রিয়তা আকাশ ছুইছুই ঐ মুহুর্তেও তার সাথে রাজনীতি করে অথচ তাদের নেতৃত্বেই এই প্রিয় নেতাকে হত্যা করা হয়।

আহসান উল্লাহ্ মাষ্টার এমপি’র বিষয়েও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হয়েছে। বর্তমান সময়েও গাজীপুরজুড়ে আওয়ামীলীগের বহিষ্কৃত নেতারা যারা বিভিন্ন অপরাধে ইতিমধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে নিজেদের সদস্য পদও হারিয়েছেন তারাই তাদের কালো টাকা খরচ করে মুক্তিযুদ্ধকালীন রাজাকারদের মতো গাজীপুরের রাজনীতির মধ্যে রাজাকার সাদৃশ্য অনুপ্রেবেশকারী প্রবেশ করিয়ে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করে আসছে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের হাই কমান্ডদের হস্তক্ষেপে সুচারুরূপে সকল কিছু সাজিয়ে সকল হাইব্রীড অনুপ্রবেশকারীদের বহিষ্কার করে গাজীপুরের রাজনীতিকে কলঙ্ক মুক্ত করতে পারলেই বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দূর্গ নামক গাজীপুর হবে প্রকৃত পক্ষে বঙ্গবন্ধুর গাজীপুর।