Amar Praner Bangladesh

মাদক সেবন ও বিক্রির প্রতিবাদ করায় দৈনিক মানবকন্ঠের তুরাগ প্রতিনিধির পরিবারের উপর হামলা

 

প্রাণের বাংলাদেশ ডেস্কঃ

 

মাদক সেবন ও বিক্রির প্রতিবাদ করায় দৈনিক মানবকন্ঠের তুরাগ প্রতিনিধি ও উত্তরা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি রাসেল খানের পরিবারের উপর হামলা চালায় তারই মেজো ভাই রাজীব হাসান (৩৪)।

সোমবার রাত ১০ টার দিকে উত্তরা প্রেসক্লাবের সভাপতি রাসেল খানের নিকট তার ছোট ভাই রাজীবের বিরুদ্ধে মাদক সেবন ও বিক্রি করার অভিযোগ আসলে সভাপতি তার মেজো ভাই রাজীবকে ডেকে বিষয়টি জিজ্ঞেস করলে বিষয়টি অস্বীকার করে রাজীব খারাপ আচরন করতে থাকে এবং হুমকি দিয়ে বলে আমার যা ইচ্ছে আমি তাই করবো। তুই বড় সাংবাদিক হয়ে গেছোস বেশি করলে তোর ঘরের সবাইকে গুলি করে মেরে ফেলবো এবং তোর প্রেসক্লাব ভেঙ্গে ফেলবো দেখি তুই কিভাবে সাংবাদিকতা করিস। এরই ধারাবাহিকতায় রাজীব বাসা গিয়ে পরিবারের সবাইকে মারধর করে এবং তার সাথে মাদক ব্যবসায়ী দুই সহযোগী মিলন এবং রাহিমকে সাথে নিয়ে গভীর রাতে ক্লাবঘর ভাংচুর করে।

জানা যায়, মাদক ব্যবসায়ী রাজীব সহ মিলন রাহিম,জাহাঙ্গীর, সুজন দলিপাড়া এবং বাউনিয়া এলাকায় বহুদিন যাবৎ মাদক সেবন, মাদক বিক্রি সহ ছিনতাই করে আসছে। পুলিশ তাদের আটক না করে তাদের সাথে সুসম্পর্ক রেখে তাদের সোর্স হিসেবে ব্যবহার করে। পরিবারের পক্ষ থেকে তুরাগ থানা পুলিশকে বারবার অবহিত করলেও তুরাগ থানা পুলিশের কিছু সদস্য তাকে তাদের সোর্স হিসেবে ব্যবহার করে তাকে আটক না করে ছেড়ে দেয়।

উত্তরা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠিতা সভাপতি এবং দৈনিক মানবকন্ঠের তুরাগ (ঢাকা) প্রতিনিধি রাসেল খান বলেন, মাদক ব্যবসায়ী কারো ভাই না তারা সমাজ এবং দেশের শত্রু আমি চাই পুলিশ এসব মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সক্ষতা না রেখে তাদের আটক করুক নয়তো সমাজের বাকি তরুনরা খারাপ পথে চলে যাবে।

রাতে মাদক সেবন এবং বিক্রি করার অভিযোগ আসে আমার মেজো ভাই রাজীবের বিরুদ্ধে আমি তাকে ডেকে শাসন করলে সে রাত ১২ টার দিকে বাসায় আসে আমার পরিবারের বউ এবং দুই বাচ্চার সঙ্গে খারাপ আচরণ করে এবং আমার দুই মেয়ে রাইসা আক্তার রিস্তা (১১) এবং আনিশা খান রিমঝিম (২) সহ আমার স্ত্রী শাহানাজ আক্তার (২৭) কে মারধর করে গুরুতর আহত করে।

ঘটনার পর পর তুরাগ থানা পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয় এবং এ ঘটনায় তুরাগ থানায় পরিবারের পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।