Amar Praner Bangladesh

রাজধানীতে বিকাশ পরিবহনে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেফতার-১, বাস জব্দ

 

 

মনির হোসেন (শিশির) :

রাজধানীতে বিকাশ পরিবহনের একটি চলন্ত বাসে এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে একজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) এর লালবাগ থানা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি হলো- বিকাশ পরিবহন বাসের ড্রাইভার মোঃ মাহবুবুর রহমান। বিকাশ পরিবহন বাসটি (ঢাকা-মেট্রো-ব-১২-০৬০৫) উদ্ধারমূলে জব্দ করা হয়েছে।

বুধবার (২৭ জুলাই ২০২২) সন্ধ্যা ০৭:০০ টায় ডিএমপির লালবাগ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান মোঃ কুদরত-ই-খুদা, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (চকবাজার জোন ও প্রশাসন লালবাগ বিভাগ) (অতিরিক্ত দায়িত্বে উপ-পুলিশ কমিশনার লালবাগ বিভাগ)।

তিনি বলেন, গত ২৪ জুলাই ভিকটিম রাত্র ০৮:৪০ টায় ধানমন্ডি থেকে আজিমপুরের তার বাসায় যাওয়ার উদ্দেশে বিকাশ পরিবহনের একটি বাসে উঠে। বাসে উঠে কানে হেডফোন দিয়ে গান শুনতে শুনতে এক পর্যায়ে ভিকটিম তন্দ্রাছন্ন হয়ে পড়ে। ভিকটিম রাত অনুমান ৯:১০ টায় অনুভব করে তার শরীরে কে যেন হাত দিয়েছে। তাৎক্ষণিক সে তাকিয়ে দেখে বাসে কোন যাত্রী নেই এবং তার পাশের সিটে বাসের হেলপার বসা। তখন সে বিপদ আঁচ করতে পেরে বাসের হেলপারকে তার পাশ থেকে ধাক্কা দিয়ে সরানোর চেষ্টা করে। ভিকটিম সিট থেকে দাড়িয়ে নামার চেষ্টা করলে হেলপার তাকে পিছন থেকে জড়িয়ে ধরে ও এক হাতে মুখ চেপে ধরে। তখন ভিকটিম নিজেকে বাঁচানোর জন্য সর্বশক্তি প্রয়োগ করে হেলপারের নিকট থেকে ছুটে ড্রাইভারকে চিৎকার করে বাস থামাতে বলে। ড্রাইভার তখন বাস না থামিয়ে দ্রুত গতিতে ইডেন কলেজের সামনে দিয়ে আজিমপুরের দিকে যেতে থাকে। এক পর্যায়ে আজিমপুর গার্লস স্কুলের নিকটে বাসটি একটু স্লো হলে ভিকটিম লাফ দিয়ে বাস থেকে নেমে আত্মরক্ষা করে।

তিনি আরো বলেন, ভিকটিম ঘটনাটি ফেইসবুকে শেয়ার করে একটি পোস্ট দেয় এবং একটি ইলেকট্রনিক মিডিয়া বিষয়টি নিয়ে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে। এরপর লালবাগ থানা পুলিশ প্রাথমিক অনুসন্ধান পূর্বক ভিকটিমকে চিহ্নিত করে তথ্য সংগ্ৰহ করে। তাৎক্ষণিক সিসি ফুটেজ পর্যালোচনা এবং আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে বিকাশ পরিবহনের বাসটি শনাক্ত করা হয়। এরপর এ ঘটনার সাথে জড়িত বিকাশ পরিবহন বাসের ড্রাইভার মোঃ মাহবুবুর রহমানের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। পরবর্তীতে বুধবার (২৭ জুলাই ২০২২) ভোর ৬ টায় ঢাকা জেলার আশুলিয়ায় থানায় লালবাগ জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার কে. এন. রায় নিয়তি এর নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে মাহবুবুরকে গ্রেফতার করা হয়। উক্ত বাসের হেলপারকে গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত আছে।

এ ঘটনায় লালবাগ থানায় একটি মামলা রুজু হয়েছে। গ্রেফতারকৃতকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণের আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে।