রাজধানীর দক্ষিণখানে পুলিশের গাড়ীতে হামলা, ভাংচুর

 

 

 

এ.আর. মজিদ শরীফ/ রবিউল আলম রাজু:

 

করোনা ভাইরাসে যখন বাংলাদেশে লকডাউন কিছুটা শিথিল করা হয়েছে ঠিক এই মূহুর্তে পুলিশ কর্তৃক করোনা ভাইরাস মহামারীতে যেন মানুষজন অতিরিক্ত জটলা না করে এবং অটোরিক্সা ও অন্যান্য যানবাহনে অতিরিক্ত যাত্রী হয়ে না উঠে এই বিষয়ে পুলিশের তদারকি চলছে সর্বত্র। কিন্তু কিছু সুবিধাভোগী চাঁদাবাজরা এই করোনা লকডাউনকে সম্পূর্ণ রূপে উপেক্ষা করে সরকার বিরোধী পদক্ষেপ নিয়ে পুলিশের প্রতিদিনের কাজে বাঁধা বিঘ্ন সৃষ্টি করে একটি অস্থিতিশীল অকার্যকর দেশ করার ঘৃণ্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। রাজধানীর উত্তরার বিভিন্ন পয়েন্টে চলে আসছে অটোরিক্সা সহ বিভিন্ন যানবাহন থেকে চাঁদাবাজী প্রক্রিয়া। এসব চাঁদাবাজদের অনেক রাজনৈতিক নেতারা শেল্টার দিয়ে আসছে। এসব অপকর্মের রেশ ধরেই

রাজধানীর দক্ষিণখান থানায় পুলিশের গাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর করে দূর্বৃত্তরা। ঘটনাটি ঘটে আব্দুল্লাহ্পুর কোটবাড়ী এলাকায়। আজ বুধবার সকাল ১১:০০ ঘটিকায় ঘটনাটি ঘটে।

বুধবার সকালে দক্ষিণখান থানাধীন এলাকা আব্দুল্লাহ্পুর কোটবাড়ী রেলগেইট এ পুলিশ  দায়িত্ব পালনকালে অটোরিক্সা গুলো মেইন রোডে যেতে বাঁধা দেওয়ায় কয়েকজন লোক এসে পুলিশের সাথে উচ্চ কন্ঠে কথা বলে এবং পুলিশকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে।

এক পর্যায়ে রাশি আক্তার রাশি নামে এক মহিলা এসে পুলিশকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলেও রাশি আক্তার রাশি ও তার লোকজন পুলিশের উপর চড়াও হয়। পরবর্তীতে পুলিশ ও দূর্বৃত্তদের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়।

হামলাকারীরা দায়িত্বরত পুলিশের উপ-পুলিশ পরিদর্শক রাম উত্তম এর উপর হামলা চালায়। পুলিশের ব্যবহৃত সরকারী গাড়ী ভাংচুর এবং কর্মকর্তাদের গায়ে হাত তুলে দূর্বৃত্তরা। দক্ষিণখান থানার পুলিশের কয়েকটি টিম এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনায় এ যাবৎ ১৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং দূর্বৃত্তদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলমান আছে এবং এই হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

রাশি আক্তার রাশি উত্তরা পূর্ব  থানা ও দক্ষিণখানের অটোরিক্সার টোকেন ব্যানিজ্যর সাথে জড়িত। হাজারো অটো রিক্সার পিছনে কুটুম বাড়ী নামের টোকেন গুলো তার নিয়ন্ত্রণে।

কোটবাড়ী সালমা মার্কেট রেললাইনের পাশে নিজস্ব বাড়ী ও সরকারী খাস জমির উপরে আওয়ামীগের একটি কার্যালয় রয়েছে তার। কয়েক মাস আগে দক্ষিণ খানের কোটবাড়ী পুলিশ চেকপোস্টে ডিউটিরত পুলিশ একটি অটোরিক্সা আটককে কেন্দ্র করে পুলিশের গায়ে হাত তুলে এই রাশি। সেই ঘটনার পরে বেশকিছু দিন পলাতক ছিলো। এই বিষয় নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে  সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছিলো।

অটোরিক্সা টোকেন নেত্রী  রাশি আক্তার মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেন ৪৬,৪৭, ৪৮ মহিলা আসনে।

যদিও মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে আওয়ামীগের দলীয় প্রার্থী হওয়ার জন্য চেষ্টা করেন। দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেন। সে নিজেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের পরিচয় দিয়ে জনমনে ভীতি সঞ্চার প্রদর্শন করে আসছিল।

যদিও খোজ নিয়ে জানা যায়, রাশির  আওয়ামীলীগে কোন দলীয় পদ নেই। আওয়ামীলীগের নেত্রী হিসেবে উত্তরার আব্দুল্লাহপুর, কোটবাড়ী,আদমআলী মার্কেট,গোয়ালটেক,সালমা মার্কেট, সহ দক্ষিণখানে পরিচিত।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দক্ষিণখান থানার অফিসার ইনচার্জ সিকদার মোঃ শামীম প্রাণের বাংলাদেশ’কে জানায়, রাশি আক্তার রাশি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান, পরবর্তীতে আমরা তার মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। এ যাবৎ সময়ে আমরা ১৪ জন হামলাকারীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি ভিডিও ফুটেজ দেখে দোষীদেরকে গ্রেফতার করার চেষ্টা চলছে এবং আমাদের অভিযান চলমান আছে।