Amar Praner Bangladesh

রাস্তা তো নয় এ যেন মরণ ফাঁদ

 

 

মোঃ আবদুল আউয়াল সরকার, কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধিঃ

 

কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার হাউজিং এস্টেট এলাকায় চকবাজার থেকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসার রাস্তাটি চলাচলের জন্য মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।

বিশেষ করে নূরপুর হতে হাউজিং এস্টেট ৪নং মেইন রাস্তা পর্যন্ত রাস্তাটির পাকাস্তর উঠে দুপাশে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

মোঃ আবদুল কাদের নামে এক স্কুল শিক্ষক জানান, প্রতিদিন এই রাস্তা দিয়ে শত শত গাড়ি চলাচল করে ও অসংখ্য মানুষ যাতায়াত করে। তাদের কত যে ভোগান্তি তা বলে বুঝানো যাবে না।

সরেজমিনে গেলে সড়কের হাউজিং এস্টেট এলাকায় একটি সিএনজি রাস্তার মাঝে সৃষ্ট বড় গর্তে পড়ে যেতে দেখা যায়। এ সময় মায়ের কোল থেকে একটি ৪ মাসের শিশু কাঁদা পানিতে পড়ে যায়। পাশে থাকা পথচারীরা দ্রুত এগিয়ে এসে শিশুটিকে একহাটু কাঁদা মিশ্রিত পানি থেকে তুলে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করে। সিএনজি ড্রাইভার মোঃ কালা মিয়া বলেন, রাস্তায় এতবড় গর্ত, জমে থাকা ময়লা পানির জন্য তা বুঝা যায়না। সবসময় এমন দুর্ঘটনা হয়।

কাজল বেগম বলেন, বেহাল রাস্তার দুর্ভোগ আর গেল না। হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে এই রোডটি দিয়ে। যোগাযোগের ভোগান্তি চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। একজন মুমূর্ষ রোগীকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া অনেক কষ্টকর !

ফলে ওই রাস্তাটি দিয়ে ভ্যান রিকশাসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী লোকজনের ভোগান্তির শেষ নেই। অসুস্থ রোগীকে হাসপাতালে আনতে ভ্যান ও রিকশাও খুঁজে পাওয়া যায় না। এ রাস্তার দিয়ে স্কুল, কলেজ, মাদ্রসার শিক্ষার্থীসহ মানুষজনের প্রতিনিয়ত চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে। মেরামতের অভাবে দীর্ঘদিন যাবত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পথচারীদের।

মনে হচ্ছে দেখার কেউ নেই। বর্ষা-বৃষ্টির কাদা-পানি আর ভাঙ্গাচোরার কারণে জনদুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। এ নিয়ে পথচারীদের ক্ষোভের শেষ নেই।

অনেক দিন যাবৎ রাস্তা সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেই, যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটি দ্রুত সংস্কারের দাবী এলাকাবাসীর।