Amar Praner Bangladesh

সাতক্ষীরায় ১৫ বছরের মেয়েকে বিয়ে দেওয়ায় অভিভাবকের দায়িত্ব থেকে সরে গেলেন বাবা মারুফ হোসেন

মোঃ আশিকুর রহমান, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ মেয়ের বয়স ১৫। অপরিনত বয়সে তিনি তার মেয়েকে বিয়ে দিতে রাজী ছিলেন না। এ নিয়ে কম ঝগড়া হয়নি। শহরের অদুরে বাঁকাল গ্রামের বাবা মারুফ হোসেন তবু অনড়। ১৮ এর আগে মেয়ের বিয়ে নয়।
কিন্তু শেষ পর্যন্ত মেয়ের বিয়ে ঠেকাতে পারেন নি তিনি। এই ব্যর্থতার দায় ঘাড়ে নিয়ে বাবা মারুফ হোসেন তার চার সন্তানের অভিভাবকত্বের দায়িত্ব থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন। মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানিয়েছেন, সাতক্ষীরা শহরের বাঁকাল পৌর এলাকার ৬ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত আবজাল হোসেনের ছেলে ট্রাক চালক মোঃ মারুফ হোসেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, তার চার সন্তান। তাদের নিয়ে বেশ শান্তিতে ছিলেন তিনি। কিন্তু মেয়ে হিরা খাতুনের বয়স ১৫ হতেই তার শ্বশুর আবদুল খালেক, শাশুড়ি সালেহা বেগম এবং তার স্ত্রী মেয়েকে বিয়ে দিতে জোর তোড়জোড় চালায়। এতে বাধা দেন তিনি। তিনি বলেন আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। ১৮ এর আগে বিয়ে নয়। এ নিয়ে ঝগড়া ঝাটি হয়েছে অনেক। অবশেষ মারুফ হেরে গেছেন। তার মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে।
রাগে ক্ষোভে ও দুঃখে তিনি বলেন, আমি তাদের কাছে মূল্যহীন। তাই আমি আমার চার সন্তান মোঃ সাব্বির হোসেন শিবলু, হিরা খাতুন, শাকিল সরদার ও তামিম হোসোনকে অভিভাবকত্বের দায়িত্ব থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিলাম।
তিনি সংবাদ সম্মেলনে মাধ্যমে যাতে আইনগত সহায়াতা ও আদালতের সহযোগিতা পেতে পারি তার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষে আশু হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন ফারুক হোসেন।