Amar Praner Bangladesh

সাভারে সরকারি ঘর দেওয়ার নামে আত্মসাৎ করেছেন কোটি টাকা

 

 

মোর্শেদ আলী মারুফ :

 

সাভারে সরকারি ঘর পাইয়ে দেয়ার কথা বলে বঙ্গবন্ধু পক্ষাঘাত ও পেশাজীবি পরিষদ নামে একটি ভুঁইফোড় সংগঠন পরিচয়দানকারী প্রতারক চক্ররা ফের বেপরোয়া হয়ে মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। সাভার উপজেলার পাথালিয়া ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন মহল্লা থেকে প্রায় অর্ধশতাধিক অসহায় পরিবারের কাছ থেকে এ চক্ররা অর্ধ কোটি টাকারও বেশি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এর আগে ২০২১ সালে ১৬ মার্চ এই প্রতারক চক্রের অন্যতম সদস্য আল আমিন অসহায় পরিবার গুলোর কাছ থেকে তিন কোটি টাকা আত্নসাতের অভিযোগে গেন্ডা এলাকা থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে সাভার মডেল থানা পুলিশ। তবে এসময় তার কয়েকজন সহযোগী পলাতক ছিলেন বলে পুলিশ নিশ্চিত করেন। আল আমিনের পলাতক সহাযোগিদের মধ্যে অন্যতম সহাযোগি রোকসানা আক্তার দীর্ঘদিন পালিয়ে থেকে ফের বেপরোয়া হয়ে পাথালিয়া এলাকায় প্রতারনার ফাদ পেতে বসেছেন।

পাথালিয়া ইউনিয়নের মানুষের স্বপ্ন ছিলো একটি ভালো ঘরে পরিবার নিয়ে সুন্দরভাবে বসবাস করার। তাদের এই স্বপ্নকে পুঁজি করে প্রতারণার ফাঁদ পাতলো রোকসানা আক্তার নামে একটি চক্র। অসহায়দের জন্য সরকার ঘর নির্মাণ করে দেবে বলে খবর প্রচার করে তারা। এরপর পাথালিয়ো ইউনিয়নের প্রায় অর্ধশতাধিক পরিবারকে ১৫ দিনের মধ্যে ঘর দেওয়ার কথা বলে লাখ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যায় প্রতারক চক্রের সদস্যরা। প্রতি ঘরের জন্য এক লাখ থেকে দেড় লাখ টাকা করে দিয়েছেন বলে জানান ক্ষতিগ্রস্ত ভোক্তভোগি কাউয়ুম, আবুল হাসেম, বেলায়েত হোসেন, লোকমান হোসেন, আয়তালসহ অনেকে।

পাথালিয়া ইউনিয়নে বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, সাভার পৌরসভার আড়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা মো: লাবু মিয়ার স্ত্রী রোকসানা আক্তারসহ কয়েকজন প্রতারক চক্র সদস্যরা বেপরোয়া হয়ে ওই এলাকার অসহায় পরিবারদের টার্গেট করে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে সরকারী ঘর দেওয়ার প্রতিশ্রতি দেন। এসময় প্রতারক চক্ররা তাদেরকে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে সাভার উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম জানালেন, সরকারের পক্ষ থেকে দরিদ্রদেরকে ঘর দেওয়ার কোন প্রকল্প বর্তমানে নেই। প্রতারণার বিষয়টি জানার পর পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রতারক চক্রের সদস্যদের গ্রেফতার ও অর্থ উদ্ধারে প্রশাসনের সহযোগিতা চাইছেন আশ্রয়ের আশায় ধার দেনা করে টাকা দিয়ে নিঃস্ব হওয়া মানুষগুলো।